এ ঘটনায় অন্তত এক ডজন সাধারণ মানুষ ও নিরাপত্তা বাহিনীর একাধিক সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা।

নাগাল্যান্ডে বিদ্রোহী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযানের সময় প্রায়ই নিরীহ গ্রামবাসীরা সেনা সদস্যদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হন বলে অভিযোগ স্থানীয় লোকজনের।

আসাম রাইফেলসের সদস্যদের তেমন একটি অভিযানের সময় নাগাল্যান্ডের মন জেলায় মিয়ানমার সীমান্ত লাগোয়া গ্রাম অটিংয়ে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। এক ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা এ কথা জানিয়েছেন। রাজ্যটিতে মোতায়েন ভারতীয় সেনাবাহিনীর অংশ এই আসাম রাইফেলস।

দিনের কাজ শেষে একটি ট্রাকে করে বাড়িতে ফিরছিলেন ৩০ বা তারও বেশি খনিশ্রমিক। আসাম রাইফেলসের অস্থায়ী ঘাঁটি পার হওয়ার সময় নির্বিচার গুলি শুরু হয়।

কথা বলার অনুমতি না থাকায় নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশের একে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সাংবাদিকদের বলেন, ওই এলাকায় কিছু বিদ্রোহী আনাগোনা করছে বলে সেনাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য ছিল। ট্রাকটি দেখে ভুলে ওই খনিশ্রমিকদের তাঁরা বিদ্রোহী মনে করে গুলি চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই ছয় শ্রমিক প্রাণ হারান।

ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, গ্রামে গুলির খবর ছড়িয়ে পড়ার পর স্থানীয় সম্প্রদায়ের শতাধিক মানুষ অস্থায়ী ঘাঁটি ঘিরে ফেলেন। তাঁরা আসাম রাইফেলসের গাড়িতে আগুন দেন এবং স্থানীয়ভাবে তৈরি ধারালো ও আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে সেনাদের সঙ্গে তাঁদের সংঘর্ষ হয়।

ওই কর্মকর্তা জানান, এ সময় আসাম রাইফেলসের সেনাসদস্যরা পাল্টা আক্রমণ চালান। তাঁদের দ্বিতীয়বারের হামলায় আরও আট গ্রামবাসী ও নিরাপত্তা বাহিনীর এক সদস্য নিহত হন।