বিজ্ঞাপন

তবে গাজিয়াবাদের প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা এন কে গুপ্ত বলেছেন, ইয়েলো ফাঙ্গাসে কারও সংক্রমিত হওয়ার কোনো তথ্য তিনি এখন পর্যন্ত পাননি।

ইএনটি বিশেষজ্ঞ বিপি ত্যাগীর ভাষ্যমতে, ইয়েলো ফাঙ্গাসের সংক্রমণ প্রাণঘাতী। প্রাথমিকভাবে সংক্রমণ শনাক্ত করা গেলে তা চিকিৎসার ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে।

বিপি ত্যাগীর ভাষ্যমতে, ইয়েলো ফাঙ্গাসের লক্ষণগুলো হলো ক্লান্তিবোধ, ক্ষুধা না থাকা, ওজন হ্রাস। সংক্রমণ মারাত্মক হলে সে ক্ষেত্রে ক্ষতস্থান থেকে পুঁজ বের হওয়া, ক্ষত দীর্ঘস্থায়ী হওয়া, অপুষ্টি, অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিকল, চোখ বুজে আসা প্রভৃতি।

সরকারের করোনা সংক্রান্ত ব্রিফিংয়ে এইমসের প্রধান রণদীপ বলেন, করোনা রোগীদের মধ্যে ফাঙ্গাসের সংক্রমণের ক্ষেত্রে নানা ‘শব্দ’ ব্যবহার করা হচ্ছে। এগুলো বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে পারে।

রণদীপ বলেন, রঙের ভিত্তিতে, সংক্রমণের এলাকার ওপর নির্ভর করে একই ফাঙ্গাসের নানান নামকরণ বিভ্রান্তি তৈরি করছে।

ভারতে করোনা সংক্রমণের ভয়াবহতার মধ্যে দেশটিতে ‘ব্ল্যাক ফাঙ্গাস’ ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ছে। সাধারণ সময়ে প্রতিবছর দেশটিতে যেখানে ২০ জনের মতো মানুষ এই ফাঙ্গাসে সংক্রমিত হন, এবার সেই সংখ্যা কয়েক হাজার।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন