অগ্নিনির্বাপণ ও উদ্ধারকারী সংস্থার কর্মকর্তা ভানুপ্রিয় বিবিসিকে বলেছেন, একটি জেনারেটর দিয়ে গাড়িটি চলছিল। কিন্তু রাস্তায় বাঁক নেওয়ার সময় জেনারেটরটি অচল হয়ে যায়। গাড়ি থামিয়ে তখন জেনারেটর ঠিক করা হচ্ছিল। এমন সময় এটি উচ্চগতির একটি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের সংস্পর্শে এলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, ওই শোভাযাত্রায় প্রায় ৫০ জন মানুষ অংশ নিয়েছিলেন। হঠাৎ জেনারেটরে ত্রুটি দেখা দেওয়ায় গাড়িটি দাঁড়িয়ে পড়ে।

পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভিকে বলেন, সাধারণত শোভাযাত্রার সময় উচ্চগতির ওই বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন দিয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকে। কিন্তু এবার সংযোগ সচল ছিল। কারণ, রথ থেকে বিদ্যুতের লাইনের উচ্চতা বেশি থাকায় এটি সংস্পর্শে আসবে না বলেই ধরে নেওয়া হয়েছিল।

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত্যুর ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী এম কে স্তালিন। তিনি দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এবং শোকাহত পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছেন। দুর্ঘটনায় নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে রাজ্যে সরকারের পক্ষ থেকে পাঁচ লাখ রুপি করে সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয়।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুইট বার্তা দিয়ে দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তি ও পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন। নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে দুই লাখ রুপি করে সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন