বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছে, তারা তাদের মজুত থেকে ৮ কোটি ডোজ সরবরাহ করতে প্রস্তুত। এর মধ্যে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ছাড়াও রয়েছে ফাইজার, মর্ডানা ও জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা।

জয়শঙ্করের এই সফর ফলপ্রসূ হলে বাংলাদেশও উপকৃত হতে পারে। বাংলাদেশকে টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট চুক্তিবদ্ধ। কিন্তু সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ ভারতে যে হাহাকার সৃষ্টি করেছে তাতে চুক্তি সত্ত্বেও টিকা সরবরাহ সম্ভব হচ্ছে না।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় ভারত সব দেশে টিকা রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে। এতে বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ। কারণ, সময় মতো অন্তত ১৫ লাখ ডোজ ‘কোভিশিল্ড’ টিকা না পাওয়া গেলে বাংলাদেশের যাঁরা ওই টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন তাঁদের দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এই সফরে জয়শঙ্কর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন ছাড়াও বাইডেন প্রশাসনের বিভিন্ন মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন। কথা হবে কোভিড সহযোগিতা নিয়েও। জয়শঙ্কর এই সফরে দেখা করবেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গেও।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন