শত্রুঘ্ন সিনহা এ বছরের মার্চ মাসে তৃণমূলে যোগ দেন। এপ্রিল মাসে আসানসোল লোকসভা আসনের উপনির্বাচনে তিনি তৃণমূলের টিকিটে জয়ী হন। তিনি ওই আসনের সাবেক বিজেপির সংসদ সসদস্য বাবুল সুপ্রিয়র স্থলাভিষিক্ত হন। বাবুল সুপ্রিয় বিজেপি থেকে পদত্যাগ করায় আসানসোল আসনটি শুন্য হয়।

শত্রুঘ সিনহা এর আগে ১৯৮০ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত ছিলেন বিজেপির সঙ্গে। বিজেপির টিকিটে সংসদ সদস্য এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও হয়েছিলেন। ২০১৯ সালে বিজেপি থেকে বেরিয়ে যোগ দেন কংগ্রেসে। কংগ্রেসে থাকেন ২০২২ সালের মার্চ পর্যন্ত। তারপর আবার কংগ্রেস ছেড়ে এ বছরের মার্চ মাসেই যোগ দেন তৃণমূলে। তারপর এপ্রিল মাসে আসানসোল লোকসভা আসনের উপনির্বাচনে তিনি তৃণমূলের মনোনয়ন পেয়ে জয়ী হন।

শত্রুঘ্ন সিনহার বাড়ি বিহারের রাজধানী পাটনায়। শত্রুঘ্ন সিনহা আসানসোলের সংসদ সদস্য হলেও তিনি নিয়মিত পাটনা থেকে আসানসোলে আসেন না বলে এলাবাসীর অভিযোগ রয়েছে।

আর এই অভিযোগ তুলে আসানসোলের কুলটি এলাকায় গতকাল একটি পোস্টার পড়ে। ওই পোস্টারে বলা হয়, সামনে এলাকার সবচেয়ে বড় উৎসব ছটপূজা। এই পূজা অবাঙালিদের মধ্যে বেশি হয়ে থাকে। আসানসোল একটি শিল্প এলাকা। সেখানে প্রচুর অবাঙালি মানুষের বাস । ছটপূজোয় শত্রুঘ্ন সিনহাকে না পাওয়ায় এলাকার কিছু মানুষ এভাবে কুলটির সর্বত্র এই পোস্টার ছড়িয়ে দিয়েছেন।

রাজ্যে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস অবশ্য বলেছে, এটা বিজেপির কাজ। শত্রুঘ্ন সিনহাকে হেয় করার জন্য লাগানো হয়েছে ওই পোস্টার। শত্রুঘ সিনহা তো প্রতি মাসেই একবার-দুবার এলাকায় আসেন। তাঁদের সঙ্গে সময় কাটান, কথা শোনেন। বিজেপি শত্রুঘ্ন সিনহাকে হেয় করার জন্য অহেতুক জল ঘোলা করছে।

তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক ভি. শিবদাসন দাসু বলেছেন, এটা বিজেপির চাল। তারাই ওই পোস্টার লাগিয়েছে। ৩০ অক্টোবর বিহারীদের অন্যতম সেরা উৎসব ছট পূজোয় শত্রুঘ্ন সিনহা অবশ্যই আসবেন।