বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বাগচী বলেন, ‘তিনি (জাকির নায়েক) ভারতীয় আইনের আওতায় অভিযুক্ত ব্যক্তি। আমরা ইতিমধ্যে তাঁকে প্রত্যর্পণের বিষয় নিয়ে মালয়েশিয়ার সঙ্গে কথা বলেছি। বিষয়টি নিয়ে কাতারের সঙ্গেও কথা বলেছি আমরা।’

অরিন্দম বাগচী আরও বলেন, ভারতে জাকির নায়েককে আইনি প্রক্রিয়ার মুখোমুখি করতে সরকার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে।

নিজের বক্তৃতা নিয়ে ২০১৬ সালে তীব্র আলোচনা-সমালোচনার মুখে পড়েন জাকির নায়েক। সে সময় তাঁর বিরুদ্ধে অর্থ পাচার ও উগ্রপন্থাকে উসকে দেওয়ার অভিযোগ তুলেছিল ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। একই অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে মামলাও হয়। বন্ধ করে দেওয়া হয় তাঁর প্রতিষ্ঠিত ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশন (আইআরএফ) ও পিস টিভি।

অভিযোগ ওঠার পর ২০১৬ সালের ১ জুলাই ভারত ছেড়ে পালিয়ে যান জাকির নায়েক। জাকির নায়েক মালয়েশিয়ায় আশ্রয় চাইলে তাঁকে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দেয় তৎকালীন নাজিব রাজাক সরকার। এর পর থেকে তিনি মালয়েশিয়ার পুত্রজায়া শহরে বসবাস করে আসছেন।

চলতি বছরের মার্চে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জাকির নায়েক প্রতিষ্ঠিত ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনকে (আইআরএফ) বেআইনি সংস্থা ঘোষণা করে। এটিকে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়।