বালিতেই বুধবার ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদোর কাছ থেকে পরবর্তী এক বছরের জি-২০ গোষ্ঠীর সভাপতির ভার গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ১ ডিসেম্বর থেকে এই দায়িত্ব পালন করবে ভারত। আগামী বছর ভারতে অনুষ্ঠিত হবে এই গোষ্ঠীর শীর্ষ সম্মেলন। সেখানে বাংলাদেশকে পর্যবেক্ষক হওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছে ভারত। বাংলাদেশ তা গ্রহণ করেছে।

বালি সম্মেলন অবশ্য বিতর্কহীন থাকল না। সম্মেলনের অবসরে ইন্দোনেশিয়ায় বসবাসকারী প্রবাসী ভারতীয়দের এক সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী মোদির মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেছে কংগ্রেস। কংগ্রেস মুখপাত্র জয়রাম রমেশ টুইট করে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী বিদেশে গিয়ে চিরায়ত প্রথা ভঙ্গ করেছেন। বিদেশে গিয়ে দেশীয় রাজনীতির অবতারণা করেছেন। আন্তর্জাতিক আসরে দেশীয় রাজনীতি টেনে এনেছেন।

প্রবাসীদের সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, ‘২০১৪ সালের আগে ভারত ছিল একরকম। এর পর থেকে অন্য রকম হয়ে গেছে। তিনি বলেন, আগের ভারত ছিল স্লথ। পরের ভারত গতিশীল। আজকের ভারত তীব্র গতিতে ধাবমান। আজকের ভারত শুধু বিশ্বের দীর্ঘতম মূর্তিই স্থাপন করে না, বৃহত্তম স্টেডিয়ামও তৈরি করছে। ২০১৪ সালের পর থেকে আমরা দেশে ৩২ কোটি ব্যাংক হিসাব খুলেছি, যা যুক্তরাষ্ট্রের মোট জনসংখ্যার চেয়ে বেশি। আজকের ভারত দ্রুততম অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দেশ।’

মোদির সমালোচনা করে জয়রাম রমেশ বুধবার টুইট করে বলেন, উনি আত্মমগ্ন। বহু বছরের ঐতিহ্য, বিদেশে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীরা দেশীয় রাজনীতির আলোচনা করেন না। ২০১৪ সাল থেকে এই ইতিবাচক প্রথা ভেঙে গেছে। সর্বশেষ নিদর্শন ইন্দোনেশিয়া। জি-২০ লোগোয় ভারত পদ্মফুল লাগানোয় এর আগেও কংগ্রেস সমালোচনা করেছিল। পদ্মফুল বিজেপির নির্বাচনী প্রতীক।