ছাঁটাই শেষে এখন মাত্র কয়েকজনের (এক ডজনের মতো) চাকরি আছে। বিষয়টি স্পর্শকাতর হওয়ায় সূত্রটি পরিচয় প্রকাশ করতে চায়নি।

ওই সূত্রটি জানিয়েছে, ভারতে যেসব কর্মী চাকরি হারিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে ৭০ ভাগই ছিলেন টুইটারের প্রোডাক্ট এবং ইঞ্জিনিয়ারিং দলের। টুইটারের ভারতে কর্মরত বিপণন, পাবলিক পলিসি এবং করপোরেট যোগাযোগ বিভাগের কর্মীদেরও ছাঁটাই করা হয়েছে।

ক্যালিফোর্নিয়ার সান ফ্রান্সিসকোভিত্তিক কোম্পানি টুইটার বিশ্বব্যাপী তাদের প্রায় অর্ধেক কর্মীকে ছাঁটাই করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, ছাঁটাই কর্মীর সংখ্যা ৩ হাজার ৭০০ জনের মতো।

ভারতে টুইটারের অফিসগুলো রাজধানী নয়াদিল্লি, বাণিজ্যিক রাজধানীখ্যাত মুম্বাই এবং দক্ষিণাঞ্চলের প্রযুক্তিকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত বেঙ্গালুরুতে। এসব অফিসে ২০০ জনের বেশি ভারতীয় কর্মী কাজ করতেন।

ভারতে বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তি প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে প্রায়ই টুইট করেন। রাজনৈতিক বিষয়াবলি নিয়ে টুইটারে বেশ আলোচনাও হয়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির টুইটার অ্যাকাউন্টে ৮ কোটি ৪০ লাখ অনুসারী আছে। এখন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, ছাঁটাইয়ের পর কমসংখ্যক কর্মী নিয়ে কীভাবে ভারতে নিজেদের কার্যক্রম চালাবে টুইটার!