ক্লাবের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশ ও বিদেশি গণমাধ্যমে কর্মরত ভারতীয় প্রতিনিধি (নাগরিক) সাধারণ সদস্যপদ পেতে পারেন। বাংলাদেশি ও বিদেশি নাগরিক সাংবাদিকদের দেওয়া হবে সাম্মানিক সদস্যপদ। তবে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমের সঙ্গে ন্যূনতম তিন বছর যুক্ত থাকতে হবে, বলা হয়েছে বিবৃতিতে।

ক্লাবটি গঠিত হওয়ার বিষয়টি মাথায় রেখে গত শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সদস্যরা মধ্য কলকাতার একটি অফিসে বৈঠক করেন। সেখানে ক্লাবের পক্ষ থেকে তাঁদের হাতে মিষ্টি ও ইলিশ মাছ তুলে দেওয়া হয়। ইন্দো-বাংলা প্রেসক্লাবের মুখপাত্র দীপক দেবনাথ বলেন, একে অপরের পাশে থাকাই আমাদের মূল লক্ষ্য।

সাময়িকভাবে বিপদের মধ্যে পড়েছেন, অসুস্থ বা বয়স্ক সাংবাদিকদের পাশে থাকাই যে এই ক্লাবের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য, তা জানান দেবনাথ। কোনো সাংবাদিক মারা গেলে, কীভাবে তাঁর পরিবারের পাশে দাঁড়ানো যায়, তা নিয়েও সাংবাদিকদের মধ্যে মতবিনিময় হয় ক্লাবের প্রথম সভায়। এ ছাড়া সদস্যরা বলেন, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে মানুষে মানুষে আদান-প্রদান বাড়ানোও ক্লাবের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য।

ভারত ও বাংলাদেশের সাংবাদিকদের মধ্যে সমন্বয় রেখে শিগগিরই ইন্দো-বাংলা প্রেসক্লাব একটি ওয়েবসাইট চালু করবে, যেখানে ক্লাবের কাজকর্ম সম্পর্কে তথ্য দেওয়া হবে। কী ক্লাবের সদস্য হতে হবে, তা-ও বলা থাকবে বলে মুখপাত্র জানান।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন