চলতি বছরের গোড়ায় কর্ণাটকের বিভিন্ন শিক্ষালয়ে মুসলমান ছাত্রীদের হিজাব পরে শ্রেণিকক্ষে আসতে বাধা দেওয়া হয়। বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জানায়, ইউনিফর্ম ছাড়া কোনো ধর্মীয় পোশাক পরা যাবে না। এই নিয়মকে কেন্দ্র করে রাজ্যে উত্তেজনা ছড়ায়। হিজাবকে কেন্দ্র করে মুসলমান নারীদের ক্ষমতায়নে বাধা সৃষ্টির অভিযোগ ওঠে শাসক দল বিজেপির বিরুদ্ধে। প্রাতিষ্ঠানিক নির্দেশের বিরুদ্ধে শেষ পর্যন্ত মামলা হয় কর্ণাটক হাইকোর্টে।

আবেদনকারী ছাত্রীদের পক্ষ থেকে বলা হয়, ইউনিফর্মের সঙ্গে মানানসই ‘হেড স্কার্ফ’ পরার অনুমতিটুকু যেন দেওয়া হয়। কিন্তু হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি ঋতুরাজ অবস্থি, বিচারপতি কৃষ্ণ দীক্ষিত ও বিচারপতি কে এম খাজিকে নিয়ে গঠিত ‘ফুল বেঞ্চ’ গত ১৫ মার্চ ওই মামলার রায়ে জানান, ইসলাম ধর্মে হিজাব পরা বাধ্যতামূলক নয়। ফলে চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হিজাব পরার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ যে নির্দেশ জারি করেছিল, তা বলবৎ থাকে।

কর্ণাটক সরকারের ওই নির্দেশ ও হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এর পরপরই সুপ্রিম কোর্টে একাধিক আবেদন জমা পড়ে। কিন্তু জরুরি ভিত্তিতে সেই আবেদন শুনতে সুপ্রিম কোর্ট রাজি হননি।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন