১৩ জানুয়ারি ভারতের উত্তর প্রদেশের বারানসি থেকে এই প্রমোদতরির যাত্রা শুরু হয়। ইতিমধ্যে উত্তর প্রদেশ, বিহার রাজ্য ঘুরে এখন পশ্চিমবঙ্গে রয়েছে। আজ বুধবার রাজ্যের মুর্শিদাবাদ থেকে নদীয়ায় যাওয়ার কথা। তার আগে চুরির ঘটনায় বিহ্বল যাত্রীরা।

রোববার রাতে এই প্রমোদতরিতে আয়োজন করা হয়েছিল বাউলগানের আসর। সেই আসরে যোগ দিয়েছিলেন এ প্রমোদতরির পর্যটকেরা। তাঁরা গান শুনতে শুনতে যখন বিভোর, তখনই ঘটে চুরির ঘটনা। একদল দুষ্কৃতকারী ওই প্রমোতরিতে ঢুকে বিদেশি পর্যটকদের অর্থ, এটিএম কার্ডসহ বিভিন্ন ডকুমেন্ট হাতিয়ে নেয়। রাতে পর্যটকেরা তাঁদের নিজ নিজ কক্ষে ঢুকে বুঝতে পারেন তাঁদের অর্থসহ বিভিন্ন মালামাল খোয়া গেছে। তখনই তাঁরা নালিশ জানান কর্মকর্তাদের। কর্মকর্তারা প্রথম দিকে সক্রিয় উদ্যোগ না নিলেও গতকাল মঙ্গলবার পর্যটকদের পক্ষে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার সাগর থানায় মামলা হয়। পুলিশও তদন্ত শুরু করেছে।

এই জাহাজের অন্যতম পর্যটক অনুপ কুমার দাস। তিনি দাবি করেছেন, এই চুরির সঙ্গে জড়িত রয়েছেন জাহাজের পাঁচ কর্মী। ওই কর্মীদের সঙ্গে দুষ্কৃতকারীদের যোগাযোগ রয়েছে। সাগর থানার পুলিশ এখন ঘটনাস্থল কচুবেড়িয়ায় সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখছে।

প্রমোদতরিতে ওই দিন ৪৩ পর্যটক ছিলেন। এর মধ্যে ১৮ জন নারী ও শিশু, ছিলেন ৩২ জন সুইজারল্যান্ডের পর্যটক।

এই প্রমোদতরি ভারতের ৭ রাজ্য ছুঁয়ে ৫০টি ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থান পরিদর্শন করে বাংলাদেশ হয়ে আসামের ডিব্রুগড়ে যাত্রা শেষ করবে।

প্রমোদতরিতে রয়েছে ১৮টি বিলাসবহুল কেবিন।