সাদ আল-জাবরি সতর্ক করে বলেন, বিপুল সম্পদ মোহাম্মদ বিন সালমানকে বিশ্বের জন্য একটি হুমকিতে পরিণত করেছে।

সাদ আল-জাবরি বলেন, সৌদির যুবরাজ এমন একজন হত্যাকারী, যাঁর অসীম সম্পদ রয়েছে।

সাদ আল-জাবরির ভাষ্য, মোহাম্মদ বিন সালমান ‘টাইগার স্কোয়াড’ নামের একটি ভাড়াটে নৃশংস গ্যাং চালান। এই গ্যাংকে তিনি অপহরণ ও হত্যার মতো কর্মকাণ্ডে ব্যবহার করেন।

সাক্ষাৎকারে সাদ আল-জাবরি বলেন, ‘আমি এখানে অসীম সম্পদওয়ালা মধ্যপ্রাচ্যের একজন সাইকোপ্যাথ, হত্যাকারী সম্পর্কে সতর্কবার্তা দিতে এসেছি, যিনি (মোহাম্মদ বিন সালমান) তাঁর দেশের জনগণ, আমেরিকান ও এই গ্রহের জন্য হুমকিস্বরূপ।’

সাদ আল-জাবরি বলেন, সৌদি যুবরাজ একজন সাইকোপ্যাথ, যাঁর কোনো সহমর্মিতা নেই। তিনি কোনো আবেগ অনুভব করেন না। তিনি তাঁর অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নেন না। এই হত্যাকারীর নৃশংসতা ও অপরাধ প্রত্যক্ষ করেছেন তিনি।

সাদ আল-জাবরি সৌদির সাবেক যুবরাজ মোহাম্মদ বিন নায়েফের দীর্ঘদিনের উপদেষ্টা ছিলেন। ২০১৭ সালের জুনে মোহাম্মদ বিন নায়েফকে যুবরাজের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। নতুন যুবরাজ হন মোহাম্মদ বিন সালমান।

পরে সাদ আল-জাবরি তাঁর জীবনের আশঙ্কায় দেশ ছাড়েন। তিনি পালিয়ে কানাডায় যান। তিনি এখন কানাডাতে নির্বাসিত জীবন যাপন করছেন।

২০২০ সালে সাদ আল-জাবরি সৌদির যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের বিরুদ্ধে ওয়াশিংটন ডিসির আদালতে মামলা করেন। তিনি অভিযোগ করেন, ২০১৮ সালে তাঁকে হত্যার জন্য কানাডায় একটি ঘাতক দল পাঠিয়েছিলেন সৌদির যুবরাজ। এ ঘটনার দুই সপ্তাহ আগে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যা করা হয়। এ হত্যার নির্দেশদাতা মোহাম্মদ বিন সালমান বলে অভিযোগ রয়েছে।

সৌদির সাবেক গোয়েন্দা কর্মকর্তা সাদ আল-জাবরি বলেন, তাঁর আশঙ্কা, তিনি একদিন মোহাম্মদ বিন সালমানের নির্দেশে খুন হবেন। কারণ, তাঁর কাছে সৌদি সরকার ও রাজপরিবার সম্পর্কে সংবেদনশীল তথ্য রয়েছে।

সাদ আল-জাবরি বলেন, ‘এই লোক (মোহাম্মদ বিন সালমান) আমাকে মৃত না দেখা পর্যন্ত বিশ্রাম নেবেন না।’

সাদ আল-জাবরির বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সৌদি দূতাবাস বলেছে, তিনি একজন অবিশ্বস্ত সাবেক সরকারি কর্মকর্তা। নিজের করা আর্থিক অপরাধ আড়াল করার জন্য বানোয়াট ও বিভ্রান্তি সৃষ্টির দীর্ঘ ইতিহাস আছে তাঁর।

মধ্যপ্রাচ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন