ইউক্রেন ও রাশিয়ার যুদ্ধের ছায়ায় বিশ্বনেতাদের নিয়ে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশন আহ্বান করা হয়েছে। এমন এক সময়ে এ অধিবেশন শুরু হয়েছে, যখন ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বজুড়ে দেখা দিয়েছে চরম খাদ্যসংকট। ক্ষমতাধর দেশগুলোর মধ্যে এমন বিভাজন তৈরি হয়েছে স্নায়ুযুদ্ধের পরে যা দেখা যায়নি।

বিশ্বে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে সব পক্ষের মধ্যে সহযোগিতার সম্পর্ক ও আলোচনার কোনো বিকল্প নেই বলে জানান আন্তোনিও গুতেরেস। জাতিসংঘ মহাসচিব দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ–পরবর্তী জাতিসংঘের মৌলিক এই দুই নীতির ওপর জোর দিয়ে সতর্ক করে বলেন, কোনো একক শক্তি বা গোষ্ঠীর দ্বারা এটা সম্ভব নয়।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ হলে সমবেত বিশ্বনেতাদের আহ্বান জানিয়ে আন্তোনিও গুতেরেস বলেন, ‘আসুন, আমরা সবাই এক হয়ে, বৈশ্বিক একটি জোট হয়ে, সব জাতিরাষ্ট্র এক হয়ে কাজ করি। দিনের পর দিন উন্নত ও উন্নয়নশীল, উত্তর ও দক্ষিণ, সুযোগ–সুবিধা পাওয়া ও সুযোগ–সুবিধাবঞ্চিত দেশের মধ্যে বিভাজন প্রকট হচ্ছে। ভূরাজনৈতিক উত্তেজনা ও আস্থাহীনতার মূলে থাকা এ বিভাজন টিকা থেকে নিষেধাজ্ঞা বাণিজ্য থেকে বৈশ্বিক সহযোগিতা প্রতিটি ক্ষেত্রকে বিষিয়ে তুলেছে।’

সাধারণ পরিষদের এবারের অধিবেশনের আলোচ্যসূচিতে বেশির ভাগ দেশের অগ্রাধিকার পাওয়া বিষয় হলো ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যকার যুদ্ধ। চলমান এই যুদ্ধ শুধু রাশিয়ার প্রতিবেশী ইউক্রেনের সার্বভৌমত্বকে হুমকির মুখে ফেলেনি একই সঙ্গে ইউরোপের সর্ববৃহৎ পারমাণবিককেন্দ্রে পরমাণু বিপর্যয়ের শঙ্কা তৈরি করেছে।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন