বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাদ রিজভি সন্ত্রাসবাদ বিরোধী আইনে গ্রেপ্তার ছিলেন। তাঁর মুক্তি ছাড়াও আরেকটি দাবি ছিল ফ্রান্সের দূতাবাসের কর্মকর্তাদের বহিষ্কার করতে হবে। কারণ, দেশটির ব্যঙ্গাত্মক সাপ্তাহিক শার্লি এবদো মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে নিয়ে আবার ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ করেছে। কিন্তু এই যে লংমার্চ করে টিএলপির নেতা-কর্মীরা এগিয়ে যাচ্ছিলেন ইসলামাবাদের দিকে সেই লংমার্চে নৃশংস ঘটনা ঘটে।

৩১ অক্টোবরের ঘটনা। ওয়াজিরাবাদ শহরের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ কর্মকর্তা ইরফান আহসানকে সেখানে পোস্টিং দেওয়া হয়। সেখানে বিক্ষোভ চলছিল। ওই দিন দুপুরে ইরফান আহসান ওষুধ কেনার জন্য দোকানে গিয়েছিলেন। তখন তাঁকে অপহরণ করা হয়। ইরফানের ভাই উসমান আহসান বলেন, এর কদিন পর একটি হাসপাতালের পাশে থেকে তাঁর ভাইয়ের খণ্ডিত মরদেহ পাওয়া যায়। তিনি বলেন, ‘যারা ইরফানকে হত্যা করেছে তারা নিজেদের “ইসলামের রক্ষক” হিসেবে দাবি করেন।

আমরা ঠিক জানি না, তাঁরা কোন ইসলামের চর্চা করেন।’ উসমান বলেন, তারা অনেক পরিবার ধ্বংস করেছে। শুধু একজন মানুষকে মুক্ত করতে গিয়ে তারা ছোট্ট একটি শিশুকে এতিম পর্যন্ত করেছে।

এমন নৃশংসতার জন্য টিএলপি যে শুধু এই বারই দায়ী এমনটা নয়। এর আগে পুলিশ জানিয়েছিল, টিএলপির সমর্থকেরা ১০ জন পুলিশ সদস্যকে হত্যা করেছে। আর নির্যাতন করেছে ১ হাজার ৩০০ জনকে।

২০১৫ সালে টিএলপি প্রতিষ্ঠিত হয়। এর প্রতিষ্ঠাতা খাদিম হুসাইন রিজভি। এই সংগঠনটি পাকিস্তানে ব্লাসফেমি আইনের সমর্থক তারা। এই সংগঠন প্রতিষ্ঠান পর খাদিম ঘোষণা দিয়েছিলেন, পৃথিবীর বুক থেকে নেদারল্যান্ডসকে মুছে দেওয়া হবে। কারণ, মহানবীকে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র আঁকার প্রতিযোগিতা আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছিল নেদারল্যান্ডসের এক রাজনীতিক।

খাদিম মারা যান ২০২০ সালে। ফ্রান্সের বিরুদ্ধে বিক্ষোভও তাঁর হাত ধরেই শুরু। তিনি মারা যাওয়ার পর সাদ রিজভির হাতে সংগঠনের দায়িত্ব। সাদ রিজভি নেতা হওয়ার পর আবারও ফ্রান্সের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক ছিন্ন করার দাবি তোলেন। এরপর চলতি বছরের এপ্রিলে এই দাবিতে বড় বিক্ষোভ হয়। এই বিক্ষোভের সময় সাদকে গ্রেপ্তার করা হয়, সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ আনা হয় তাঁর বিরুদ্ধে।

পাকিস্তান সরকার সেই সময় কঠোর অবস্থান নিয়েছিল। কিন্তু সাত মাসের ব্যবধানে সরকার তাঁর অবস্থান একেবারে উল্টে ফেলল। সাদসহ সংগঠনটির নেতা-কর্মীদের ছেড়ে দেওয়া হলো। টিএলপির বিরুদ্ধে যে নিষেধাজ্ঞা ছিল তা-ও প্রত্যাহার করে নেওয়া হলো। এই সিদ্ধান্তের পর পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

সরকারের এই অবস্থান বদলের পেছনে জেনারেল কামার জাবেদ বাজওয়ার কী ভূমিকা, তা-ও জানা যায়নি। সরকারও এই বিষয়ে মুখ খোলেনি। সরকার বলছে, মহানবী ইস্যুতে তারা কোনো সংঘর্ষে জড়াতে চায় না। কিন্তু বিশ্লেষকেরা বলছেন, মহানবী বা ইসলাম ধর্ম ইস্যুতে টিএলপি যে অবস্থান নিয়ে তার বিরুদ্ধে শক্তিপ্রয়োগের ঘটনার রাজনৈতিক মূল্য দিতে হতে পারে।

default-image

পাকিস্তানের সরকারের তথ্যমন্ত্রীও ফাওয়াদ চৌধুরীও বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন। তিনি বলেন, সম্প্রতি পাকিস্তানে যা ঘটছে তা ভারতের জন্য হুমকি নয়। এটা পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ উগ্রবাদ। যেভাবে সরকার টিএলপির বিষয়টি সমঝোতা করেছে তা একটা টাইম বোমার মতো। উগ্রবাদের এই বোমা যেকোনো সময় ফুটতে পারে।

টিএলপি যে অবস্থান নিয়েছে তাতে করে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে তারা সমর্থন পাচ্ছে। বিশ্বজুড়ে তাদের জনপ্রিয়তাও বেড়েছে। তারা দাবি করছে, যুক্তরাজ্য, ইউরোপেই তারা ছড়িয়ে পড়ছে। এ প্রসঙ্গে টিএলপির গণমাধ্যমবিষয়ক সমন্বয়ক সাদ্দাম বুখারি দাবি করেছেন, তাঁদের প্রতিষ্ঠাতা যখন মারা যায়, তখন ইউরোপ থেকে অনেকে তাঁকে দেখতে এসেছিলেন।

এ প্রসঙ্গে পাকিস্তান ইনস্টিটিউট অব পিস স্টাডিসের নিরাপত্তা বিশ্লেষক আমির রানা বলেন, যেভাবে সরকার টিএলপি ইস্যুতে সমঝোতা করল তা ইতিমধ্যে ইউরোপের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্কের সাম্যাবস্থার ওপর প্রভাব ফেলেছে। আর টিএলপিকে রাজনীতিক করতে দেওয়ার যে সুযোগ দেওয়া হলো তার প্রভাবও বড় আকারে পড়বে বলে মনে করেন তিনি। এ বিষয়ে আমির রানার বক্তব্য হলো, পাকিস্তানের ভেতরে কী হচ্ছে, তার ধার ধারে না আন্তর্জাতিক মহল। তাদের উদ্বেগের কারণ হলো, তারা মনে করে, টিএলপি পাকিস্তানের বাইরে থাকা দেশটির নাগরিকদের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে। এটা নিরাপত্তা হুমকি তৈরি করতে পারে বলেও মনে করছে আন্তর্জাতিক মহল।

টিএলপি ধর্মীয় অনুভূতিকে কাজে লাগিয়ে সফল হয়েছে। তারা এ সফলতাকে রাজনীতির মাঠে কাজে লাগাবে কি না, এ প্রসঙ্গে পাঞ্জাবের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী হাসান আসকারি রিজভি বলেন, পাকিস্তানের রাজনীতি দিনকে দিন ডানপন্থার দিকে এগোচ্ছে। এই অবস্থায় টিএলপির উত্থান নির্বাচনী রাজনীতিতে বড় কোনো প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করেন না তিনি।

পাকিস্তানের পাশের দেশ আফগানিস্তানের তালেবান ক্ষমতায় এসেছে। পাকিস্তানের তালেবানরাও হুমকি দিচ্ছে নতুন করে। এই পরিস্থিতিতে টিএলপির উত্থান আন্তর্জাতিক মহলকে উদ্বিগ্ন করবে এটাই স্বাভাবিক। ভারতীয় গণমাধ্যম টিএলপির উত্থানের জন্য সরাসরি পাকিস্তানি সরকারি বাহিনীকে দায়ী করে মন্তব্য প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

এদিকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদে অর্থ জোগানদাতাদের পর্যবেক্ষক সংস্থা ফিন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্কফোর্সের (এফএটিএফ) নজরদারিতে দীর্ঘদিন পাকিস্তান। বিভিন্ন সময় পাকিস্তানে সন্ত্রাস দমনে চাপ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ভারতের অভ্যন্তরে অনেক হামলার জন্য দেশটির সরকার পাকিস্তানি সন্ত্রাসীদের দায়ী করে থাকে। এই পরিস্থিতিতে টিএলপি দেশটির সরকার আন্তর্জাতিক মহলের চাপের মুখে ফেলছে বলেই প্রতীয়মান হচ্ছে।

*বিবিসি, টাইমস অব ইন্ডিয়া, এনডিটিভি, ডন অবলম্বনে মোজাহিদুল ইসলাম মণ্ডল

পাকিস্তান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন