পুলিশের মুখপাত্র খুররম শেহজাদ বলেন, এখন পর্যন্ত ১২০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে প্রধান অভিযুক্ত ব্যক্তিও আছেন। গ্রেপ্তার অভিযান এখনো চলছে।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ধর্মীয় সম্প্রীতিবিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি ও ধর্মী নেতা তাহির আশরাফি গ্রেপ্তারের তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

গত শুক্রবার পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের শিল্পনগরী শিয়ালকোটে ‘ভয়ংকর’ এই হত্যাকাণ্ড ঘটে। নিহত ব্যক্তির নাম প্রিয়ান্থা দিয়াওয়াদনা। শ্রীলঙ্কার এই নাগরিক সাত বছর ধরে শিল্প–প্রকৌশল প্রতিষ্ঠান রাজকো ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, প্রিয়ান্থাকে মেঝেতে ছুড়ে ফেলে দেওয়া হচ্ছে। শত শত মানুষ তাঁর জামা-কাপড় ছিঁড়ছে। সহিংসভাবে তাঁকে মারধর করছে। পিটিয়ে হত্যার পর তাঁর লাশ পোড়ানো হয়। কয়েক ডজন মানুষকে তাঁর লাশের সঙ্গে ছবি তুলতেও দেখা যায়।

গুজব থেকে ঘটনার শুরু। গুজব ওঠে যে প্রিয়ান্থা ধর্মীয় বাণী লেখা একটি পোস্টার ছিঁড়ে তা ডাস্টবিনে ফেলেছেন। এমন অভিযোগ ওঠার পর লোকজন উত্তেজিত হয়ে হামলা চালান।

ইমরান খান ঘটনার নিন্দা জানিয়ে টুইট করেছেন। তিনি বলেছেন, শিয়ালকোটে কারখানায় ভয়াবহ হামলা ও শ্রীলঙ্কান ব্যবস্থাপককে হত্যার ঘটনা পাকিস্তানের জন্য লজ্জার দিন। তিনি নিজেই তদন্ত কার্যক্রম তত্ত্বাবধান করছেন। এ ঘটনায় দায়ীদের আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হবে।

লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। সংগঠনটি এক বিবৃতিতে বলেছে, ধর্ম অবমাননার অভিযোগে শিয়ালকোটে শ্রীলঙ্কান কারখানা ব্যবস্থাপককে হত্যার ঘটনায় তাঁরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।