ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত ১ হাজার ৬৬ জনের মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়েছে। মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত হয়েছেন, এমন সন্দেহভাজন রয়েছেন আরও ৫১৩ জন। ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য-উপাত্তে দেখা যাচ্ছে, দেশটিতে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত ৯৮ শতাংশ রোগী পুরুষ এবং যাঁরা অন্য পুরুষদের সঙ্গে যৌন সংসর্গে লিপ্ত হয়েছেন।

ব্রাজিলে প্রথমবারের মতো মাঙ্কিপক্সে একজনের মৃত্যুর কথা জানানোর কিছুক্ষণ পরই স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ইউরোপে প্রথম মাঙ্কিপক্সে মৃত্যুর কথা জানায়। এক প্রতিবেদনে স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত ৩ হাজার ৭৫০ রোগীর সম্পর্কে তথ্য পাওয়া গেছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, এর মধ্যে ১২০ জন বা ৩ দশমিক ২ শতাংশ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তবে মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারানো ব্যক্তি সম্পর্কে মন্ত্রণালয় আর কোনো তথ্য জানায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের রোগনিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধকেন্দ্রের (সিডিসি) দেওয়া সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত ২১ হাজার ১৪৮ জনের মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়েছে। মাঙ্কিপক্স সংক্রমণের পেছনে রয়েছে মাঙ্কিপক্স নামের একটি ভাইরাস। এটি স্মলপক্স ভাইরাস শ্রেণির। করোনা মহামারির প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই উত্তর আমেরিকা ও ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে মাঙ্কিপক্সের উল্লেখযোগ্যসংখ্যক রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর আগে সাধারণত আফ্রিকার দেশগুলোয় এ ভাইরাস শনাক্ত হতো।

গত শনিবার ডব্লিউএইচওর জরুরি কমিটির বৈঠক শেষে সংস্থাটির প্রধান তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস মাঙ্কিপক্স সংক্রমণকে বৈশ্বিক স্বাস্থ্যবিষয়ক জরুরি সতর্কতা ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ‘মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণকে বৈশ্বিক জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতা হিসেবে ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এটি সারা বিশ্বের জন্য উদ্বেগের।’

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন