নিউইয়র্ক পোস্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, মৃত্যুর মুখ থেকে বেঁচে ফেরা ওই নারীর নাম ক্যান্ডেলা বলে জানা গেছে। ওই ঘটনার ভিডিও ধারণ হয় রেলস্টেশনে থাকা সিসিটিভি ক্যামেরায়। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, একটি ট্রেন যাচ্ছে। পাশে কিছু যাত্রী দাঁড়িয়ে আছে। ওই নারী হঠাৎ ট্রেনের দুই বগির মাঝখানে পড়ে যান।

ভিডিওতে দেখা যায়, ক্যান্ডেলা স্বাভাবিক ছিলেন না। মাথা ও শরীর দুলছিল তাঁর। তিনি সোজা হয়ে দাঁড়াতে কিংবা স্বাভাবিকভাবে হাঁটতে পারছিলেন না। এভাবেই একসময় চলন্ত একটি ট্রেনের নিচে পড়েন তিনি। পাশে থাকা যাত্রীরা ভেবেছিলেন, তিনি মারা গেছেন। কিন্তু তিনি আহত হননি। ঘটনাটি গত ২৯ মার্চের।

ট্রেন থামিয়ে সেখানে থাকা যাত্রী, ট্রেনের কর্মী, অন্যরা মিলে ক্যান্ডেলাকে ট্রেনের নিচ থেকে টেনে তোলেন। এরপর একটি হুইলচেয়ারে ক্যান্ডেলাকে অ্যাম্বুলেন্সে নেওয়া হয়।

দ্রুত বুয়েন্স এইরেস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানান, ক্যান্ডেলার কিছুই হয়নি। তিনি এখন বিপদমুক্ত।

নিউইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী আর্জেন্টিনার একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে ক্যান্ডেলা বলেন, ‘আমি জানি না, কীভাবে আমি এখনো বেঁচে আছি। আমি এখনো এটা বোঝার চেষ্টা করছি। হঠাৎ আমার রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ায় আমি অজ্ঞান হয়ে পড়েছিলাম। সামনে থাকা একজনকে আমি বোঝানোর চেষ্টা করছিলাম। এরপর কী ঘটেছে, মনে করতে পারি না। এমনকি যখন ট্রেনে গিয়ে ধাক্কা খেলাম সেই মুহূর্তটিও না।’ ক্যান্ডেলা এভাবে তাঁর বেঁচে ফেরার ঘটনাকে ‘পুনর্জন্ম’ বলেন।

লাতিন আমেরিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন