বিজ্ঞাপন

নগরের পুলিশপ্রধান কার্ল ডেভিস বলেন, রোববার ভোররাতের দিকে তাঁদের কাছে ফোন আসে। ইয়াংসটাউন শহরের টর্চ বার অ্যান্ড গ্রিল নামের পানশালার কাছে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় কয়েকজন ব্যক্তি পড়ে আছে। সেখানে টহলরত কয়েকজন পুলিশ সদস্যও ছিলেন। পানশালার বাইরে গোলাগুলির সময় মানুষের বেশ ভিড় ছিল। এরই মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। পানশালার ভেতরে কোনো বিরোধ থেকে এ ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর।
পুলিশ বলছে, ঠিক কী কারণে ঘটনা ঘটেছে বা ঘটনার জন্য দায়ী এক বা একাধিক ব্যক্তি কি না, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এখনো ঘটনার জন্য দায়ী কাউকে পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

নগরীর মেয়র জামাইল টিটো ব্রাউন এক বিবৃতিতে বলেন,এমন ঘটনা খুবই দুঃখজনক। মধ্যরাতের পর যখন পুলিশপ্রধান মেয়রকে ফোন করে জানাতে হয়, নগরীতে গোলাগুলিতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে, তখন নগরপিতা হিসেবে তাঁর দুঃখজনক সময় পার করতে হয়।

যুক্তরাষ্ট্রে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে এলোপাতাড়ি গুলির ঘটনা সাম্প্রতিক সময় হঠাৎ করেই বেড়ে গেছে। এমন বড় বড় ঘটনা ঘটলেই সবাই নড়েচড়ে বসেন, আগ্নেয়াস্ত্র আইন সংশোধন করার কথা আলোচনায় আসে। যুক্তরাষ্ট্রে বছরে গড়ে বন্দুক সহিংসতায় ২০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। বৈধ-অবৈধ অস্ত্রের ঝনঝনানি গ্রীষ্ম মৌসুমে বেড়ে যায়। মানুষের আনন্দ সমাবেশ, পারিবারিক পার্টিতে সামান্য কথা–কাটাকাটি থেকেও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান নাগরিকদের অস্ত্র রাখার অধিকার দিয়েছে। জীবনের দাম দিয়ে মার্কিন জনগণ যেন এখন সাংবিধানিক এই অধিকার রক্ষা করছে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন