বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব অনুযায়ী, গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে দৈনিক গড়ে রেকর্ড ২ লাখ ৬৫ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এ ছাড়া ডেনমার্ক, স্পেন, পর্তুগাল, গ্রিস, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ায় নতুন করে দৈনিক করোনা শনাক্তে আগের সব রেকর্ড ভেঙে গেছে।

বিশ্বজুড়ে রেকর্ডসংখ্যক সংক্রমণের নেপথ্যে থাকা করোনার দুটি ধরনের (ডেলটা ও অমিক্রন) প্রকোপকে ‘যুগল হুমকি’ বলে সতর্ক করেছেন ডব্লিউএইচওর প্রধান।

তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ডেলটার পাশাপাশি একই সময় আরও সংক্রামক ধরন অমিক্রনের বিস্তারে করোনা শনাক্তের সুনামি নিয়ে তিনি অত্যন্ত উদ্বিগ্ন।

ডব্লিউএইচওর মহাসচিব বলেন, নতুন করে শুরু হওয়া করোনার এই প্রকোপ পরিশ্রান্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টি করতে থাকবে। স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাবে।

তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস সাংবাদিকদের বলেন, উন্নত দেশগুলোর টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়ার ব্যাপক কর্মসূচি করোনা মহামারিকে আরও দীর্ঘায়িত করতে পারে। কারণ দরিদ্র ও টিকাদানের হার কম—এমন দেশগুলোর পরিবর্তে টিকার সরবরাহ ধনী দেশগুলোতে যাচ্ছে। এই বিষয়টি করোনাভাইরাসকে অধিক বিস্তার লাভ ও মিউটেশনের সুযোগ তৈরি করে দিচ্ছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বে এখন দিনে নতুন করে প্রায় ৯ লাখ মানুষের করোনা শনাক্ত হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউসি সিএনএনকে বলেছেন, জানুয়ারির শেষ দিকে দেশটিতে অমিক্রন সংক্রমণের চূড়া (পিক) দেখা যেতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন