default-image

হোয়াইট হাউসে যাওয়ার প্রথম দিনেই প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে ফেরার প্রতিশ্রুতি দিলেন ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন। প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওই আদেশ কার্যকরের দিনেই জো বাইডেন নিজের প্রতিশ্রুতির কথা বলেছেন। বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

মার্কিন নির্বাচনে ট্রাম্পকে পরাজিত করার মতো শক্ত অবস্থানে চলে এসেছেন ডেমোক্রেটিক পার্টির এ প্রার্থী। গতকাল তিনি এক টুইট করে বলেছেন, ‘আজ ট্রাম্প প্রশাসন আনুষ্ঠানিকভাবে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে বের হয়ে যাচ্ছে। ঠিক ৭৭ দিন পর বাইডেন প্রশাসন তাতে যুক্ত হবে।’

এএফপি জানিয়েছে, গতকাল বুধবার বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে আন্তর্জাতিক জলবায়ু চুক্তি থেকে সরে গেল কোনো দেশ। কিন্তু প্রেসিডেন্ট হলে তাতে আবার ফেরার প্রতিশ্রুতি দিয়ে রাখলেন বাইডেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফলে এগিয়ে থাকায় বাইডেন বলেছেন, জলবায়ু তাঁর শীর্ষ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হবে।

নির্বাচিত হলে আগামী ২০ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন বাইডেন।

বাইডেন ১ দশমিক ৭ ট্রিলিয়ন ডলারের একটি পরিকল্পনা প্রস্তাব দিয়েছেন, যাতে বিশ্বের শীর্ষ কার্বন নিঃসরণকারী দেশটিকে ২০৫০ সাল নাগাদ শূন্যের কোঠায় নামাতে পারে।

বিজ্ঞাপন

ট্রাম্প আগ্রাসীভাবে জীবাশ্ম জ্বালানি শিল্পকে চ্যাম্পিয়ন করেছেন, জলবায়ু পরিবর্তন বিজ্ঞানকে প্রশ্ন করেছেন এবং অন্যান্য পরিবেশ সুরক্ষা দুর্বল করেছেন।

গত মাসে আমেরিকাস প্লেজ নামের একটি সংস্থার প্রতিবেদন অনুযায়ী, ওয়াশিংটনের সাহায্য ছাড়াই বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য, শহর ও ব্যবসায়ীদের সহযোগিতায় দেশটিতে ২০৩০ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরণ ৩৭ শতাংশ কমানো সম্ভব।

গত বছরের ৪ নভেম্বর প্যারিস চুক্তি থেকে বের হতে এক বছরের নোটিশ দেন ট্রাম্প। ওই চুক্তিতে ফিরতে বাইডেনকে আবার জাতিসংঘকে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিতে হবে।

জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন বা ইউএনএফসিসিসি ১৯৯২ সালে প্রণীত হয়। ২৩ বছর ধরে অনেক সাধনার পর ২০১৫ সালে প্যারিসে জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়ে সারা বিশ্ব চুক্তিবদ্ধ হয়। বৈশ্বিক উষ্ণায়ন রোধের লক্ষ্যে ২০১৫ সালে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে জাতিসংঘের নেতৃত্বে ওই জলবায়ু চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। প্যারিস চুক্তি থেকে সরে দাঁড়ানোর পক্ষে ট্রাম্পের যুক্তি, এটি মার্কিন স্বার্থবিরোধী। যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ রক্ষাকারী একটি পরিবেশ চুক্তি করতে তিনি আগ্রহী। তবে সেটা যদি সম্ভব না হয়, তা নিয়ে প্রশাসনের কোনো উদ্বেগ নেই।

বিশ্বের ১৮০টি দেশের সমর্থনে করা প্যারিস জলবায়ু চুক্তির মূল লক্ষ্য বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি রোধ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র দেশগুলোকে অর্থসহায়তা দেওয়া। ঐতিহাসিক এই চুক্তিতে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির গড় হার দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে বা সম্ভব হলে দেড় ডিগ্রির মধ্যে রাখতে বিশ্বের দেশগুলো একমত হয়।

নেদারল্যান্ডসের জলবায়ু বিজ্ঞানী নিকলাস হন বলেছেন, বাইডেনের জলবায়ু পরিকল্পনাটিই বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধি দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমাতে পারে। এবারের মার্কিন নির্বাচন তাই আন্তর্জাতিক জলবায়ু নীতিমালার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। উষ্ণায়ন কমাতে ১ ডিগ্রির দশমাংশও গুরুত্বপূর্ণ।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0