default-image

কিছুদিন আগেই ফাইজার ও বায়োএনটেক তাদের করোনার টিকার কার্যকারিতা সম্পর্কে ঘোষণা দিয়েছিল। তারা জানিয়েছিল, তাদের তৈরি টিকা ৯০ শতাংশ পর্যন্ত কার্যকর। এবার আরেক মার্কিন প্রতিষ্ঠান মডার্না দাবি করেছে যে, তাদের টিকা প্রায় ৯৫ শতাংশ কার্যকর। এ দুই ঘোষণাতেই করোনাভাইরাসে পর্যুদস্ত বিশ্ব আশার আলো দেখছে। কিন্তু এই দুই টিকার মিল–অমিল কতটুকু?

তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষার ফলের ওপর ভিত্তি করে নিজেদের টিকার কার্যকারিতা সম্পর্কে ঘোষণা দিয়েছে মডার্না। গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়েছে, শিগগিরই যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করার কথা জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। মূলত জরুরী চিকিৎসার জন্য এ টিকা ব্যবহারের অনুমতি চাওয়া হবে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মডার্না যে ফলাফল প্রকাশ করেছে, তা প্রাথমিক। টিকাটি কতটুকু কার্যকর হবে, সে সম্পর্কে বিস্তারিত আরও তথ্য জানার প্রয়োজন রয়েছে।

কোভিড-১৯ রোগে এরই মধ্যে বিশ্বজুড়ে পাঁচ কোটিরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। এই রোগে এখনও পর্যন্ত ১৩ লাখেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

এবার আসুন মডার্নার টিকা সম্পর্কে আরও কিছু তথ্য জেনে নেওয়া যাক:

বিজ্ঞাপন
default-image

ফাইজার বনাম মডার্না

দুটি টিকাই একই পদ্ধতিতে তৈরি করা হয়েছে। বিবিসি বলছে, করোনাভাইরাসের জিনেটিক কোড ব্যবহার করেই দুটি টিকা তৈরি হয়েছে। প্রথাগত টিকা তৈরির তুলনায় এটি সহজ পদ্ধতি। এ ছাড়া এই প্রক্রিয়ায় একটি টিকা দ্রুত তৈরিও করা যায়। দুটি টিকারই মূল লক্ষ্য, মানুষের দেহের স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো।

তবে এই দুটি টিকার কার্যকারিতার যে ফল ঘোষিত হয়েছে, দুই ক্ষেত্রেই তা প্রাথমিক বিশ্লেষণ। ফাইজার-বায়োএসটেকের ক্ষেত্রে, কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত প্রথম ৯৪ জন স্বেচ্ছাসেবীর ওপর পরীক্ষার ভিত্তিতে কার্যকারিতার হিসাব পাওয়া গেছে। আর মডার্নার ক্ষেত্রে, যে বিশ্লেষণের ভিত্তিতে টিকাকে করোনা ঠেকানোর ক্ষেত্রে প্রায় ৯৫ শতাংশ কার্যকর বলে দাবি করা হচ্ছে, সেটি করা হয়েছে প্রথম ৯৫ জনের ওপর টিকা প্রয়োগের ফলাফলের ভিত্তিতে। পূর্ণ ফলাফল প্রকাশের পর দুই ক্ষেত্রেই কিছুটা পরিবর্তন আসতে পারে। অর্থাৎ চূড়ান্ত ফলাফলে পরিবর্তন আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

ফাইজারের টিকা সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বলা হয়েছিল যে, সেগুলো রাখতে হবে প্রায় মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায়। কিন্তু মডার্নার টিকা সংরক্ষণ করা তুলনামূলক সহজ। মাইনাস ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এটি ৬ মাস সংরক্ষণ করা যাবে বলে প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে। আর সাধারণ মানসম্মত ফ্রিজে ২ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় রেখে সংরক্ষণ করা যাবে ১ মাস।

default-image

মডার্নার টিকা কি নিরাপদ?

মডার্নার টিকার তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা চালানো হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রে ৩০ হাজার মানুষের ওপর। এর মধ্যে অর্ধেক সংখ্যক মানুষের ওপর চার সপ্তাহের বিরতিতে দুটি ইনজেকশন প্রয়োগ করা হয়েছিল। বিবিসি বলছে, মডার্নার দাবি অনুযায়ী পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ক্ষেত্রে নিরাপত্তার দিক থেকে বড় কোনো ত্রুটি পাওয়া যায়নি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, টিকাসহ যেকোনো ওষুধেরই কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে। মডার্নার টিকার ক্ষেত্রেও সাধারণ মাথাব্যথা ও ক্লান্তিবোধ করার মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের অধ্যাপক পিটার ওপেন’শ বলেছেন, ‘টিকার ক্ষেত্রে এসব প্রভাব প্রত্যাশিত এবং টিকাটি যে কার্যকর ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যে কাজ করছে, সেটিরও পরিচায়ক।’

মডার্নার প্রেসিডেন্ট স্টিফেন হগ টেলিফোন সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘আমরা এমন একটি ভ্যাকসিন পেতে যাচ্ছি, যেটি কোভিড-১৯ থামিয়ে দিতে পারে।’

বিজ্ঞাপন

কবে পাওয়া যাবে মডার্নার টিকা?

বিবিসি বলছে, এই প্রশ্নের উত্তর নির্ভর করছে একজন ব্যক্তি বিশ্বের কোন প্রান্তে বাস করছেন এবং তার বয়স কত। মডার্না বলছে, খুব শিগগিরই যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমোদনের জন্য আবেদন করা হবে।

প্রতিষ্ঠানটির আশা, আগামী বছরের মধ্যে বিশ্বজুড়ে এক শ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহ করতে পারবে তারা। যুক্তরাষ্ট্রে সরবরাহ করতে পারবে ২ কোটি ডোজ। একই সঙ্গে অন্যান্য দেশে অনুমোদন পেতেও আবেদন করবে মডার্না।

মন্তব্য পড়ুন 0