default-image

যুক্তরাষ্ট্রে গাড়িতে ওঠা তিন নারীকে মাস্ক পরতে বলেছিলেন উবারচালক। শুধু এ অপরাধে ওই নারীদের হাতে রীতিমতো হেনস্তা হতে হয় ওই চালককে। তাঁর চোখেমুখে ছিটিয়ে দেওয়া হয় মরিচের গুঁড়া। পরে অবশ্য এক নারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ক্যালিফোর্নিয়ার সান ফ্রান্সিসকোতে এ ঘটনা ঘটে। খবর বিবিসির।

পুলিশ বলেছে, গ্রেপ্তার হওয়া নারীর নাম মালয়েশিয়া কিং (২৪)। তাঁর বিরুদ্ধে কয়েকটি অভিযোগ আনা হয়েছে। ‘ক্ষতিকর রাসায়নিকের সাহায্যে হামলা’—এসব অভিযোগের একটি। তাঁকে গ্রেপ্তার করার আগে হামলার ঘটনার একটি ভিডিওদৃশ্য সান ফ্রান্সিসকোর ভুক্তভোগী ট্যাক্সিচালক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করেন।

ট্যাক্সির ভেতরে ধারণকৃত ওই ভিডিওতে দেখা যায়, ট্যাক্সিটিতে কিংসহ তিনজন নারী যাত্রী ছিলেন। তাঁদের একজন চালকের ওপর গিয়ে কাশি দেন।

উবারচালক শুভকর খদকা (৩২) অভিযোগ করেন, তিনি তাঁর ট্যাক্সির যাত্রীদের মুখে মাস্ক পরার অনুরোধ জানান। কিন্তু তাঁরা তা পরতে অস্বীকৃতি জানান। একপর্যায়ে একজন জানান, তিনি করোনায় আক্রান্ত। এই বলে ওই নারী খদকার মুখের কাছে এসে কাশি দেন। কেড়ে নেন তাঁর মোবাইল ফোন। এ ছাড়া তাঁর মুখের ওপর মরিচের গুঁড়াও ছোড়েন।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ বলেছে, চালককে হেনস্তা করার কাজে অংশ নেওয়া সন্দেহভাজন দ্বিতীয় একজন নারী অর্না কিমিআই (২৪) তাদের জানিয়েছেন, তিনি স্বেচ্ছায় পুলিশের কাছে ধরা দেবেন। সান ফ্রান্সিসকো পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ট্রেসি ম্যাকক্রে বলেন, ‘তিনি সঠিক কাজটি করবেন জেনে আমরা খুশি হয়েছি। আমরা আশা করি, তিনি স্বেচ্ছায়ই তা করবেন।’

উবারচালক শুভকর খদকা (৩২) অভিযোগ করেন, তিনি তাঁর ট্যাক্সির যাত্রীদের মুখে মাস্ক পরার অনুরোধ জানান। কিন্তু তাঁরা তা পরতে অস্বীকৃতি জানান। একপর্যায়ে একজন জানান, তিনি করোনায় আক্রান্ত। এই বলে ওই নারী খদকার মুখের কাছে এসে কাশি দেন। কেড়ে নেন তাঁর মোবাইল ফোন। এ ছাড়া তাঁর মুখের ওপর মরিচের গুঁড়াও ছোড়েন।

সান ফ্রান্সিসকো পুলিশ বলেছে, অভিযুক্ত কিংকে গত বৃহস্পতিবার লস অ্যাঞ্জেলেস পুলিশের সহায়তায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে আনা অন্যান্য অভিযোগের মধ্যে হামলা এবং নগরীর স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা আইন লঙ্ঘনের বিষয় রয়েছে। ৭ মার্চের ওই হামলার ঘটনায় এরই মধ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন