default-image

যুক্তরাষ্ট্রের ওরেগন অঙ্গরাজ্যের বৃহত্তম শহর পোর্টল্যান্ড থেকে ১১ জনকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে আতশবাজি, হাতুড়ি ও একটি রাইফেল উদ্ধার করেছে। পুলিশের দাবি, সেখানে দাঙ্গা বেধেছিল। ওরেগনের গর্ভনর কেট ব্রাউন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের রাতেই বিক্ষোভ দমাতে ন্যাশনাল গার্ডকে সক্রিয় করেন।

নিউইয়র্কেও পুলিশ ৫০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। বুধবার বিকেল থেকেই শহরজুড়ে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। পুলিশ বলছে, বাইডেনপন্থী ও ট্রাম্প–সমর্থকেরা পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরে বাইডেনের সমর্থকেরা ছোট ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনী শোভাযাত্রা করেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজেকে জয়ী ঘোষণা করেছেন এবং বেশ কয়েকটি রাজ্যে ভোট গণনা বন্ধ করতে বলেছেন। বাইডেন বলেছেন, ভোট গণনা শেষ হলে তিনি জয়ের পথেই থাকবেন।

ডেনভারে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ানো চারজন বিক্ষোভকারীকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ডেনভারের পুলিশ বিভাগ। মিনেপোলিসের পুলিশও বলছে, রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করায় কয়েকজনকে আটক করেছে তারা।

বিজ্ঞাপন

আটলান্টা, ডেট্রয়েট ও অকল্যান্ডেও নির্বাচনী শোভাযাত্রা শুরু করেছে দুই পক্ষই। পোর্টল্যান্ড পুলিশের একজন মুখপাত্র রয়টার্সকে বলেছেন, দাঙ্গার ঘোষণা দেওয়া সমাবেশ থেকে ১১ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে কেউ আহত হয়নি। বুধবার সকালে ১০০ জনের বেশি জড়ো হয়ে মিশিগানের ডেট্রয়েটে যেতে চেয়েছিলেন। তাঁরা পুরোপুরি ভোট গণনার পাশাপাশি শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা স্থানান্তরের দাবি জানান।

৩ নভেম্বর মার্কিন নির্বাচনের আগেই কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রে কয়েক মাস ধরে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে। পোর্টল্যান্ডের ডাউনটাউন এলাকায় অনেক দিন ধরেই এ নিয়ে বিক্ষোভ হয়। অনেক সময় এসব বিক্ষোভ সংঘর্ষে রূপ নিতে দেখা যায়।

মন্তব্য পড়ুন 0