default-image

যুক্তরাষ্ট্রের ৭০ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ককে আগামী ৪ জুলাইয়ের মধ্যে করোনা টিকার আওতায় নিয়ে আসার পরিকল্পনা গ্রহণ করছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। দ্রুত যুক্তরাষ্ট্রে ১২ বছর থেকে ১৬ বছর বয়সীদের টিকা দেওয়া শুরু হচ্ছে। নতুন পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা দিবস ৪ জুলাইয়ের আগে দেশের ১৬ কোটি মানুষকে টিকার আওতায় নিয়ে আসা।

যুক্তরাষ্ট্রে টিকাকেন্দ্রগুলোতে এখন ভিড় নেই। কোনো পূর্ব তালিকাভুক্তি ছাড়াই টিকা গ্রহণ করা যাচ্ছে অধিকাংশ এলাকায়। এখন গড়ে প্রতিদিন সারা দেশে ১০ লাখের কাছাকাছি লোকজনকে টিকা দেওয়া হচ্ছে। তিন সপ্তাহ আগেও দিনে ৩০ লাখ লোকজনকে টিকা দেওয়া হয়েছে প্রতিদিন। এখন পর্যন্ত ১০ কোটি ৫০ লাখের মতো লোকজনকে টিকা দেওয়া হয়ে গেছে। এসব পর্যালোচনা করে দেখা যাচ্ছে ৪ জুলাইয়ের মধ্যে ১৬ কোটি লোককে টিকা দেওয়ার লক্ষ্য অর্জন সম্ভব।  

বিজ্ঞাপন

৪ মে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, টিকা গ্রহণে যাদের মধ্যে এখনো সংশয় বিরাজ করছে, তাদের সন্দেহ দূর করানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। এ নিয়ে ফেডারেল ও রাজ্য সরকারগুলো ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছে। স্বাস্থ্যসেবীসহ বিভিন্ন জঙ্গোস্টিকে লক্ষ্য করে এমন প্রচারণায় ফলাফল আসবে বলে মনে করা হচ্ছে।

হোয়াইট হাউস থেকে দেওয়া বক্তৃতায় প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেছেন, ‘দুই মাস সময়ের মধ্যে আমাদের স্বাধীনতা দিবস। দিনটি আমরা উদযাপন করব। আমাদের করে তা করা সম্ভব এবং তা করবই বলে তিনি প্রত্যয়ের সঙ্গে ঘোষণা করেছেন।’

vaccines.gov নামের একটি ওয়েবসাইট উন্মুক্ত করা হয়েছে। এ ওয়েবসাইটের মধ্যে যে কেউ নিকটবর্তী টিকাকেন্দ্র খুঁজে পাবে এবং এ–সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য দেওয়া আছে।

যুক্তরাষ্ট্রে ফাইজার টিকাটি ১৬ বছরের বেশি বয়সীদের দেওয়ার অনুমোদন রয়েছে। এর ফলে বিপুলসংখ্যক তরুণ টিকা গ্রহণ শুরু করেছে। ফাইজারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে টিকাটি ১২ বছর বয়সীদের দেওয়ার জন্য টিকা দেওয়ার বিষয়টি মূল্যায়ন করে দেখছে ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন(এফডিএ)। দ্রুত এমন অনুমোদন চলে আসতে পারে।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেছেন, তাঁর প্রশাসন এফডিএ'র কার্যক্রমে কোনো হস্তক্ষেপ করবে না। অনুমোদন আসার সঙ্গে সঙ্গেই দ্রুত শিশুস্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং শিশু চিকিৎসকদের কাছে টিকা পৌঁছে দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন। এফডিএ অনুমোদন করলে যুক্তরাষ্ট্রের ১ কোটি ৭০ লাখ ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সীরা টিকা গ্রহণের সুযোগ পাবে।

আমেরিকান একাডেমি অব পেডিয়াট্রিকসের তথ্য অনুযায়ী, কোভিড-১৯–এ অল্প বয়সীদের এখন সংক্রমণের হার ২২ দশমিক ৪ শতাংশ। গত বছরের করোনার শুরুর দিকের সংক্রমণে অপ্রাপ্ত বয়স্কদের মধ্যে সংক্রমণের হার ৩ শতাংশের কম ছিল।

বিজ্ঞাপন

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানিয়েছেন, ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে আলাপ চলছে। তারা যাতে টিকা গ্রহীতাদের জন্য প্রণোদনা বা ডিসকাউন্ট দেওয়ার বিষয় চালু করে। এর মধ্যেই আমেরিকার বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান টিকা গ্রহীতাদের উপহার দিচ্ছে, ক্রেতাদের বিশেষ ডিসকাউন্ট চালু করেছে।

করোনা টিকা গ্রহণে সারা বিশ্বে এগিয়ে রয়েছে ইসরায়েল। তাদের ৬০ শতাংশ জনগোষ্ঠী এর মধ্যেই টিকার অন্তত একটি ডোজ গ্রহণ করেছে। দেশটি করোনা স্বাস্থ্য সতর্কতার বিশেষ নির্দেশাবলি থেকে বেরিয়ে দ্রুত স্বাভাবিক পরিস্থিতে ফিরে আসছে।

যুক্তরাষ্ট্রে কবে স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরে আসবে, তা এখনো কেউ নিশ্চিত বলতে পারছেন না। দেশের শীর্ষ সংক্রামক বিশেষজ্ঞ ডা. অ্যান্থনি ফাউসি বলেছেন, জনগোষ্ঠীর ৭০ শতাংশ লোক টিকা নিলে একধরনের স্বাভাবিকতা ফিরে আসবে বলে তিনি আশাবাদী।

এর মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রে সংক্রমণের হার কমে আসছে। হাসপাতালে করোনা নিয়ে রোগী ভর্তির সংখ্যা কমছে। প্রেসিডেন্ট বাইডেনের পরিকল্পনামতো সবকিছু এগিয়ে গেলে ৪ জুলাই মার্কিন জনগণ অনেকটাই স্বাভাবিক পরিবেশে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করতে পারবে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন