বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২ হাজার ২৬৮ শিশুর ওপর ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানো হয়। এদের মধ্যে বাছবিচার ছাড়াই কাউকে কাউকে টিকা দেওয়া হয়েছে, আবার কাউকে প্লাসেবো দেওয়া হয়েছে।

করোনার উপসর্গ ছিল, এমন শিশুদের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার অন্তত এক সপ্তাহ পর এদের শরীরে ৯০ দশমিক ৭ শতাংশ করোনা প্রতিরোধী অ্যান্টিবডির অস্তিত্ব পাওয়া যায় বলে প্রতিবেদনে বলা হয়।

পূর্ণবয়স্কদের প্রতিটি টিকার ডোজ সাধারণত হয় ৩০ মাইক্রোগ্রামের। তবে এই ট্রায়ালে অংশগ্রহণকারী শিশুদের দেওয়া প্রতিটি ডোজ ১০ মাইক্রোগ্রামের ছিল বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে। তিন সপ্তাহের ব্যবধানে টিকার দুই ডোজ দেওয়া হয়।
যুক্তরাষ্ট্রের করোনা মহামারি শুরুর পর এখন পর্যন্ত করোনায় ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী ১৫৮ শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

ফাইজার জানিয়েছে, করোনায় প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় শিশুদের মৃত্যুহার কম হলেও চলতি বছর ৫ থেকে ১৪ বছর বসয়ী শিশুদের মৃত্যুর প্রধান ১০টি কারণে একটি ছিল কোভিড-১৯।

বৈজ্ঞানিক সংস্থাগুলোর অনুমোদন পেলেই দ্রুততার সঙ্গে দেশটির ৫ থেকে ১১ বছয় বয়সী ২ কোটি ৮০ লাখ শিশুকে টিকা দেওয়া হবে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন