আয়নমণ্ডল হলো পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের একটি অঞ্চল, যেখানে বৈদ্যুতিক চার্জযুক্ত কণা রয়েছে এবং রেডিও তরঙ্গ বিশ্বজুড়ে ভ্রমণ করার জন্য তা ব্যবহার করে থাকে। সৌর শিখা এই যোগাযোগে প্রভাব ফেলতে পারে।

নিউজউইক সাময়িকীতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সাম্প্রতিক সৌর শিখাটিকে দুর্বল হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। স্পেসওয়েদার ডটকম বলছে, সূর্যের প্রান্তে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ায় সৌর শিখাটির শক্তি কমে গেছে। সৌর শিখাটির সরাসরি আওতায় পড়েনি পৃথিবী। তারপরও অবশ্য এই সৌর বিস্ফোরণকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করা হচ্ছে। কারণ, এর ফলে সূর্যের উত্তর-পূর্ব দিকে একটি সক্রিয় অঞ্চল সৃষ্টি করতে পারে।

সৌর শিখাগুলোকে মূলত ইংরেজি বি সি এম ও এক্স-এর চারটি অক্ষর দিয়ে শ্রেণিবিন্যাস করা হয়। শক্তি বৃদ্ধির ওপর ভিত্তি করে এর ১ থেকে ৯ পর্যন্ত উপবিভাগ করা হয়। সাধারণত, এম ক্লাস এবং তার ওপরের সৌর শিখাগুলো পৃথিবীতে লক্ষণীয় প্রভাব ফেলে।

সূর্যের পৃষ্ঠের এলাকা থেকে সৌর শিখা বা স্ফুলিঙ্গ উৎপন্ন হয়, যা সানস্পট নামে পরিচিত। এখানে চৌম্বকক্ষেত্রের রেখাগুলো এত শক্তিশালী যে তাপ মহাকাশে যেতে পারে না। ফলে সেখানে শীতল ও অন্ধকার অঞ্চল সৃষ্টি হয়। এই শক্তিশালী চৌম্বকীয় ক্ষেত্রের লাইনগুলো হঠাৎ পরিবর্তিত হয়ে গেলে সৌর শিখা ও অন্যান্য সৌর পদার্থের বিস্ফোরণ যেমন করোনাল ভর ইজেকশন (সিএমই) সৃষ্টি হয়। তখন সানস্পটগুলো সক্রিয় সৌর এলাকা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন