স্যান্টিস এভাবে নির্বাচিত হওয়ায় ডোনাল্ড ট্রাম্প বেকায়দায় পড়ে গেছেন বলে মনে করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, তিনি ২০২৪ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির মনোনয়ন লাভের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হবেন। কিন্তু সেটা চাচ্ছেন না ট্রাম্প। তবে স্যান্টিস তাঁর বিজয়ী বক্তৃতায় ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ব্যাপারে কোনো আভাস দেননি।

এর আগে ট্রাম্প সোমবার তাঁর বিমানের সঙ্গী সাংবাদিকদের বলেন, ‘স্যান্টিস যদি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার চেষ্টা করেন, তবে নিজের বড় ক্ষতি করবেন। আমি মনে করি না যে এটা দলের জন্য ভালো কিছু হবে।’

ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেন, ফ্লোরিডার এই গভর্নর সম্পর্কে তাঁর কাছে এমন কিছু তথ্য আছে, যেগুলো ‘যথেষ্ট তৃপ্তিদায়ক’ হবে না।

ট্রাম্প আগামী নির্বাচনে যে প্রার্থী হতে চাইবেন, তা অনেকটা নিশ্চিত। তিনি তাকিয়ে আছেন চলমান মধ্যবর্তী নির্বাচনের দিকে। গত সোমবার ওহাইওতে এক সমাবেশে এমন ইঙ্গিত দেন যে প্রার্থিতার বিষয়টি তিনি ১৫ নভেম্বর নিশ্চিত করবেন।

এর আগে গেল সপ্তাহে পেনসিলভানিয়ায় এক সমাবেশে স্যান্টিসের সমালোচনা করেন ট্রাম্প। তিনি যদিও স্যান্টিস ‘চমৎকার মানুষ’ বলে আখ্যায়িত করেন। আবার এ–ও বলেন যে দুজনের মধ্যে কোনো ‘ঝামেলা’ নেই।

এমন কিছু প্রশংসার কথা বললেও ট্রাম্প হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘তিনি (ডিস্যান্টিস) যদি প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামেন, তবে তা তৃপ্তিদায়ক কিছু হবে না। তাঁর সম্পর্কে আমি কেবল তাঁর স্ত্রী বাদ দিয়ে সবার চেয়ে বেশি জানি। আমার ধারণা অন্য কেউ আমার প্রতিদ্বন্দ্বী হবে।’