সামরিক মহড়া চলাকালে ওই এলাকায় বিদেশি জাহাজ ও বিমান প্রবেশ না করাতে বলেছে বেইজিং। বিশ্ববাণিজ্যে তাইওয়ান ও এর আশপাশের জলসীমা গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যপথ।

এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বুধবার ন্যাশনাল পাবলিক রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জেক সুলিভান বলেন, ‘আমরা মনে করি, চীন এখানে যা করছে, তা তাদের দায়িত্বশীল আচরণ নয়।’

সুলিভান বলেন, ‘যখন কোনো সামরিক বাহিনী ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা, তাজা গোলার মহড়া, আকাশে যুদ্ধবিমান ওড়ানো এবং সাগরে জাহাজ নিয়ে টহল দেওয়ার মতো কর্মকাণ্ডে যুক্ত থাকে, তখন কিছু বিষয় বাস্তবে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়।’

তাইওয়ান প্রণালিতে উত্তেজনা কমাতে বেইজিংকে আহ্বান জানিয়েছেন সুলিভান।সুলিভান বলেন, ‘আমাদের আশা, চীন দায়িত্বশীল আচরণ করবে এবং উত্তেজনা এড়াবে যেন আকাশপথ ও সাগরপথে হিসাব-নিকাশে ভুল না হয়ে যায়।’

পেলোসি তাইওয়ান ছেড়ে যাওয়ার পর বুধবার রাতে অঞ্চলটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ২৭টি চীনা যুদ্ধবিমান তাইওয়ানের আকাশ প্রতিরক্ষা শনাক্তকরণ অঞ্চলে (এডিআইজেড) প্রবেশ করেছিল।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন