জার্মান ওই নারীর নাম জুলিয়া ফোরাট। বয়স ৩০ বছর। ভারতের গণমাধ্যম টাইমস নাউর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একেকটি বাবল ফোলাতে জুলিয়া ৩০টির বেশি চুইংগাম ব্যবহার করেন। নিজের মাথার চেয়ে বড় আকারের বাবল ফোলান তিনি।

অর্থ উপার্জনের এই বুদ্ধি এক বন্ধুর কাছ থেকে পান জুলিয়া। তিনি জানান, প্রথমে তাঁর মনে হয়েছিল, এটা হাস্যকর। কিন্তু তাঁর ভিডিওগুলো দ্রুত জনপ্রিয়তা পায়। মানুষ অর্থ ব্যয় করে তাঁর ভিডিওগুলো দেখেন। এতে উৎসাহ পেয়ে একের পর এক ভিডিও অনলাইনে আপলোড করেন তিনি।

ভিডিও বানাতে প্রতি মাসে জুলিয়া মাত্র ছয় মার্কিন ডলারের চুইংগাম কেনেন। অথচ মাস শেষে আয় হয় সাড়ে ৮০০ ডলারের বেশি। জুলিয়া বলেন, অনলাইনে ছাড়কৃত মূল্যে চুইংগাম কেনেন তিনি। বড় আকারের একেকটি বাবল ফোলাতে তিনি ১০ থেকে ১৫টি চুইংগাম ব্যবহার করেন। আর বিশালাকারের বাবলের জন্য দরকার হয় ৩০টির বেশি চুইংগাম।

স্থাপত্য ও সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ডিগ্রি রয়েছে জুলিয়ার। পাশাপাশি বিপণনেও ডিগ্রি নিয়েছেন তিনি। তাই চুইংগাম চিবিয়ে ও তা থেকে বাবল ফোলানোর ভিডিও বানানো তাঁর আয়ের মূল উৎস নয়। সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেন, মূলত মজা করার জন্য তিনি বিচিত্র এ কাজ শুরু করেছিলেন। পরে বাড়তি আয়ের জন্য ভিডিও করেন এবং তা আপলোড করেন।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন