এর আগে নগরের পাঁচটি ওয়ার্ড—উত্তর পতেঙ্গা, আন্দরকিল্লা, উত্তর পাহাড়তলী, দক্ষিণ কাট্টলী ও দক্ষিণ-মধ্যম হালিশহরের আইডি ব্যবহার করে সার্ভারে অনুপ্রবেশ করে ৫৪৭টি জন্মনিবন্ধন সনদ নেওয়া হয়। ৮ থেকে ২২ জানুয়ারির মধ্যে এ ঘটনা ঘটে।

জন্মনিবন্ধন সনদ জালিয়াত চক্র শনাক্তে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান চলছে। ইতিমধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে চারজনকে। গত সাত থেকে আট মাসে পাঁচ হাজারের বেশি জন্মনিবন্ধন সনদ নিয়েছে চক্রটি। তবে সার্ভার হ্যাক করে নাকি পাসওয়ার্ড দিয়ে ঢুকে করেছে, তা নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও জন্মনিবন্ধন সহকারীরা ধারণা করছেন, তাঁদের আইডি হ্যাক করে এসব জন্মনিবন্ধন সনদ বের করে নেওয়া হয়েছে।  

জালিয়াতি করে জন্মনিবন্ধন সনদ নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করলেও কীভাবে নিয়েছে, তার স্পষ্ট ধারণা নেই বলে জানান লালখান বাজার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল হাসনাত মোহাম্মদ বেলাল। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সিটি করপোরেশন থেকে আইডি সুরক্ষিত করার বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়। ওই নির্দেশনা অনুযায়ী আইডির পাসওয়ার্ডও পরিবর্তন করা হয়। এরপরও জালিয়াতি করে জন্মনিবন্ধন সনদ বের করে নেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এটি কি জন্মনিবন্ধন সনদের কেন্দ্রীয় সার্ভার নাকি কাউন্সিলর ও জন্মনিবন্ধন সহকারীর আইডি হ্যাক হয়েছে, তা দ্রুত শনাক্ত করতে হবে। কেননা, কেন্দ্রীয় সার্ভার হ্যাকের ঘটনা ঘটলে বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি হবে।

এই জালিয়াতির ঘটনায় নগরের খুলশী থানায় মামলা করা হবে বলে জানান ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল হাসনাত মোহাম্মদ বেলাল।