বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওই মামলায় গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগর ইউনিয়নের বালুবাড়ি এলাকার আবদুল হামিদ (৪০), একই উপজেলার বাইনগঞ্জ এলাকার নুর ইসলাম (৩৮), পাগলীডাঙ্গী এলাকার সেলিম রানা (২৫), জায়গীর জোত এলাকার আজিজার রহমান (৪৭), ঝাড়ুয়াপাড়া এলাকার ফারুক হোসেন (২৫) ও সাইদুল ইসলাম (৩৮)। ওই মামলার প্রধান আসামি বাংলাবান্ধা ইউপির চেয়ারম্যান কুদরত-ই-খুদা পলাতক।

আদালত পুলিশ, পঞ্চগড় সদর থানা–পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, তেঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগর ইউনিয়নের বালুবাড়ি এলাকার আবদুল হামিদ নামের এক ব্যক্তি জমি নিয়ে বিরোধের জেরে গত বছরের ১৮ মার্চ বাংলাবান্ধা ইউপির চেয়ারম্যান কুদরত-ই-খুদাসহ ১৭ জনের নামে তেঁতুলিয়া থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় পুলিশ ১৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ দাখিল করে।

বৃহস্পতিবার সকালে ইউপি চেয়ারম্যান কুদরত-ই-খুদাসহ ১৪ জন আসামি আদালতে জামিন নিতে আসেন। তাঁরা আইনজীবী নিয়ে আদালতের জিআরওর কাছে জামিন আবেদন জমা দিয়ে কক্ষ থেকে বের হচ্ছিলেন। এ সময় মামলার বাদী আবদুল হামিদ তাঁর আইনজীবী নিয়ে অফিসকক্ষে প্রবেশ করছিলেন। কক্ষের দরজার সামনে বাদী-বিবাদী পক্ষের মধ্যে কথা–কাটাকাটি ও হাতাহাতি শুরু হয়। পরে উভয় পক্ষের আইনজীবীরা তাঁদের নিয়ে চলে যাওয়ার সময় কুদরত-ই-খুদা মিলন আদালতের নেজারত শাখায় কর্মরত ক্যাশিয়ার সুমনকে মারার জন্য তেড়ে আসেন এবং দেখে নেওয়ার হুমকি দেন।

এর কিছুক্ষণ পর  ওই মামলার বাদী আবদুল হামিদ আদালতের ক্যান্টিনে চা-নাশতা খেতে গেলে বিবাদী পক্ষের লোকজন হামিদকে মারধর শুরু করেন। এ সময় তাঁদের চিৎকার-চেঁচামেচি শুনে আদালতের নিরাপত্তার দ্বায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা ক্যান্টিনে গিয়ে মারামারি থামিয়ে আবদুল হামিদ ও নুর ইসলামকে আটক করেন। পরে আদালত পুলিশ পঞ্চগড় সদর থানা–পুলিশকে খবর দেয়। সদর থানার পুলিশ আদালতের বাইরে অভিযান চালিয়ে অপর চারজনকে আটক করে। এ ঘটনায় মামলার পর আটক ছয়জনকে সন্ধ্যায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায় পুলিশ।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পঞ্চগড় সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ভবেশ চন্দ্র পাল বলেন, আদালত চত্বরে মারামারির ঘটনার সময় আদালত পুলিশের আটক করা দুজন আর থানা–পুলিশের অভিযানে আটক হওয়া চারজনসহ মোট ছয়জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন