বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আফাজ উদ্দিন জানিয়েছেন, শিশুর বাবা মো. মোস্তফা ফকির দীর্ঘদিন ধরে দুবাইয়ে থাকেন। শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করার পর থেকে দেশে আসার জন্য বারবার চেষ্টা করেও করোনা পরিস্থিতির জন্য আসতে পারেননি। তাকে মৃত্যুর খবর জানানো হয়েছে।

শিশু মরিয়ম আক্তার ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানা এলাকার বাসিন্দা মো. মোস্তফা ফকিরের মেয়ে। মোস্তফা গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বেড়াইদের চালা গ্রামে জায়গা কিনে বাড়ি করেছেন। সেখানে থাকেন দ্বিতীয় স্ত্রী আলিফা আক্তার। মোস্তফা ফকিরের প্রথম স্ত্রী সংসার ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। এরপর তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেন। প্রথম স্ত্রীর সন্তান মরিয়মকে দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে রেখে সম্প্রতি মোস্তফা বিদেশে গিয়েছিলেন। এরপর ওই শিশুকে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে সৎমা আলিফা আক্তারের বিরুদ্ধে। নির্যাতনের অভিযোগে শ্রীপুর থানায় মামলা হয়। শিশুর দাদা আফাজ উদ্দিন বাদী হয়ে মামলাটি করেন। গত ১৪ আগস্ট আসামি হিসেবে আলিফা আক্তারকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন