default-image

লালমনিরহাটে এক বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার দেখিয়ে সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন হয়েছে। আজ শনিবার দুপুরে শহরের মিশন মোড় চত্বরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এই মানববন্ধনের আয়োজন করে লালমনিরহাট প্রেসক্লাব।

মানববন্ধনে লালমনিরহাটে কর্মরত জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক আবদুর রব, এস দিলীপ রায়, আনোয়ার হোসেন, আবু হাসনাত, মোয়াজ্জেম হোসেন, মাহফুজ সাজু, আনিছুর রহমান, হাসান উল আজিজসহ প্রায় অর্ধশত সাংবাদিক অংশগ্রহণ করেন।

এদিকে সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলমকে আটক ও মারপিটের অভিযোগে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)। আজ শনিবার এক বিবৃতিতে আসকের পক্ষ থেকে ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের রতনাই বেইলি সেতু এলাকায় দৈনিক জনকণ্ঠ ও বাসসের লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে বিজিবির কুলাঘাট ক্যাম্পের টহল দলের তর্ক হয়। সাংবাদিক জাহাঙ্গীর ও তাঁর পরিবারের অভিযোগ, এর জেরে বিজিবির টহল দলের সদস্যরা তাঁকে আটক করে মারপিট করেন, হাতকড়া পরিয়ে, দড়ি দিয়ে বেঁধে এক বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার দেখিয়ে লালমনিরহাট সদর থানায় সোপর্দ করেন।

বিজ্ঞাপন

এদিকে বিজিবির হাতে আটক থাকা অবস্থায় জাহাঙ্গীর আলমের হাতকড়া পরা ও দড়ি দিয়ে বাঁধা অবস্থার একাধিক ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। সাংবাদিক জাহাঙ্গীরকে শুক্রবার আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাঁর জামিন মঞ্জুর করেন।

আসকের নির্বাহী পরিচালক গোলাম মনোয়ার কামাল স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে বলা হয়, যেভাবে সাংবাদিক জাহাঙ্গীরকে হাতকড়া পরিয়ে, কোমরে দড়ি বেঁধে ছবি তোলা হয়েছে, তা চরম অবমাননাকর বলে মনে করে আসক। আসক এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। একই সঙ্গে তাঁকে মারধর করার যে অভিযোগ পরিবার থেকে করা হয়েছে, তা অত্যন্ত গুরুতর। আসক মনে করে, নিরপেক্ষভাবে এ অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখা অত্যন্ত জরুরি। পাশাপাশি অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হলে আসক সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দ্রুততার সঙ্গে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন