তবে জেলা প্রশাসন বলছে, নৌকাসহ জলযানের সংকটের কারণে সব এলাকায় ত্রাণ পৌঁছানো যাচ্ছে না। সরকার থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণে খাদ্যসামগ্রী ও নগদ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে বন্যাকবলিত এলাকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও সেনাবাহিনীর উদ্ধার তৎপরতা দেখতে আজ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ সিলেটে আসছেন বলে জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান প্রথম আলোকে জানিয়েছেন।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন:

আজ সকালে সরেজমিনে দেখা গেছে, সিলেট নগরের কিছু উঁচু এলাকা থেকে পানি নেমেছে। তবে নিম্নাঞ্চল এখনো আগের মতোই প্লাবিত আছে। সেখানে কোমর থেকে গলাসমান পানি আছে। বিশেষ করে নগরের অভিজাত এলাকা হিসেবে পরিচিত উপশহরের অবস্থা খুবই করুণ। এ এলাকার অধিকাংশ স্থানে বুক থেকে গলাসমান পানি। এ ছাড়া কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কানাইঘাট, দক্ষিণ সুরমা, সিলেট সদর, বিশ্বনাথসহ বন্যাকবলিত বিভিন্ন এলাকায় এখনো বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত আছে।

পাউবো সিলেট কার্যালয়ের সর্বশেষ সকাল নয়টার তথ্য অনুযায়ী, সিলেটের সুরমা, কুশিয়ারা, লোভা, সারি, ধলাইসহ সব কটি নদ-নদীর পানি বাড়ছে। গতকালের চেয়ে আজ এসব নদ-নদীতে পানি বেড়েছে। সুরমা ও কুশিয়ারার তিনটি পয়েন্টে আগের দিনের মতো এখনো পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন