এ ঘটনায় গতকাল শিশুটির মা রানী বেগম বাদী হয়ে মানব পাচার আইনে ফতুল্লা থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলায় সুদের মহাজন লাকী বেগম, তাঁর স্বামী হযরত আলী ও শিশুটিকে কিনে নেওয়া নারী রানু বেগমকে আসামি করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক-সার্কেল) নাজমুল হাসান বলেন, লাকী বেগম ও তাঁর স্বামী হযরত আলীর কাছ থেকে রানী বেগমের স্বামী কিছু টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। সেই ঋণের টাকা শোধ করতে রানী বেগমকে লাকীর বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করতে বাধ্য করা হতো। এর মধ্যে গত বছর রানী সন্তান প্রসব করলে সুদের টাকার জন্য লাকী বেগম রানীকে না জানিয়েই তাঁর এক দিন বয়সী সন্তানকে বিক্রি করে দেন। তার পর থেকে রানী বেগমকে বিভিন্নভাবে ভয় দেখিয়ে জিম্মি করে রাখা হয়। এক বছর পর সুযোগ পেয়ে রানী ফতুল্লা মডেল থানায় এ বিষয়ে একটি মামলা করেন। পরে পুলিশ সুস্থ অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে। আজ সকালে মামলার প্রধান আসামি লাকীকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁর স্বামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এদিকে ফতুল্লা থানায় গতকাল বিকেলে শিশুটিকে তার মা রীনা বেগমের কাছে তুলে দিতে গেলে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। শিশুটিকে কিনে নেওয়া মা রানু বেগম বুক চাপড়ে বিলাপ করতে থাকেন। এক বছর ধরে সন্তানের স্নেহে বড় করা শিশুটিকে কোন উপায়ে তাঁর কাছে রাখা যাবে, তা জানতে দিগ্‌বিদিক ছুটতে থাকেন। নিজের সন্তানকে কাছে ফিরে পেয়ে রানীও কান্নায় ভেঙে পড়েন।

রানু বেগম প্রথম আলোকে বলেন, এক মেয়ে ও এক ছেলের মা তিনি। তার ১০ বছর বয়সী একমাত্র ছেলে বুদ্ধি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী। বেশ কয়েক বছর ধরে একটি সন্তান দত্তক নিতে চাচ্ছিলেন। এরই মধ্যে করোনা মহামারির সময় জানতে পারেন অভাবের কারণে একটি ছেলেশিশুকে বিক্রি করে দেওয়া হবে। তাৎক্ষণিক ৭৫ হাজার টাকায় শিশুটিকে কিনে নেন রানু। নাম রাখেন মো. ইউসুফ। গতকাল রাতে হঠাৎ তাঁর বাড়িতে পুলিশ হাজির হলে জানতে পারেন শিশুটিকে চুরি করে এনে বিক্রি করা হয়েছিল। বলতে বলতে মাথা চেপে ধরে থানার মেঝেতে বসে পড়েন রানু।

ছেলেকে কাছে পেয়ে খুশি রানী। প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর বিশ্বাস ছিল একদিন ছেলেকে ফিরে পাবেন। জন্মের আগে ছেলের নাম ঠিক করেছিলেন ‘রানা’। এখন যেহেতু ইউসুফ নাম রাখা হয়েছে, সে নামেই ডাকবেন তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন