মানববন্ধনে অংশ নেওয়া আবিরের পরিবারের সদস্যরা আসামিদের গ্রেপ্তার করে দ্রুত বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান। তাঁরা বলেন, আসামিরা প্রভাবশালী হলেও তাঁরা যেন ধরাছোঁয়ার বাইরে না থাকেন। মানববন্ধনে আবিরকে যুবলীগের কর্মী বলে উল্লেখ করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ময়মনসিংহ নগরের একাধিক তরুণের সঙ্গে আবিরের পূর্ববিরোধ ছিল। ওই তরুণেরাও ত্রিশালে আওয়ামী লীগের সম্মেলন দেখতে গিয়েছিলেন। সেখানে তাঁদের সঙ্গে আবিরের বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। বাগ্‌বিতণ্ডার একপর্যায়ে আবিরকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়।

আবির হত্যার ঘটনায় ২২ জুলাই তাঁর বাবা আবু কালাম বাদী হয়ে ত্রিশাল থানায় মামলা করেছেন। মামলায় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করা হয়েছে। মামলাটি গতকাল রোববার ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে ত্রিশাল থানার পুলিশ।

ময়মনসিংহ ডিবির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ইতিমধ্যে এই মামলায় মোট পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমরা মামলাটি তদন্ত করছি। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সব আসামিকে বিচারের আওতায় আনা হবে। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন