লাবীব হাসপাতালের নবজাতক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মো. কামরুজ্জামান শিশুটির চিকিৎসার বিষয়টি তদারক করছেন। তিনি জানান, শিশুটির হাতের প্লাস্টার ছাড়া বাকি সব দিক থেকে ভালো আছে। সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়ার পর তাকে হাসপাতাল থেকে ছাড়া হবে।

গত শনিবার বিকেলে ময়মনসিংহের ত্রিশালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের কোর্টভবন এলাকায় সড়ক পার হতে গিয়ে মারা যান রায়মনি গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম (৪২), তাঁর স্ত্রী রত্না বেগম (৩২) ও ৬ বছরের কন্যাশিশু সানজিদা। দুর্ঘটনার সময় সড়কে নবজাতকের জন্ম হয়। জন্মের পর থেকে শিশুটি চিকিৎসাধীন।

ময়মনসিংহ নগরের বেসরকারি লাবীব হাসপাতালে মালিক মো. শাহ জাহানের বাড়ি ত্রিশালের রায়মনি গ্রামে। দুর্ঘটনার পর তিনি নবজাতকের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন। তিন বলেন, শিগগিরই শিশুটির নাম রাখা হবে। সাত দিনের মধ্যে তিনি আকিকা দেবেন।

শিশুটির দাদা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘বাচ্চার নাম আমরা রাখব না। সারা দেশের মানুষ ওর কথা জানে। দেশের মানুষকে নাম রাখার দায়িত্ব দিলাম।’

শিশুটির জন্মের খবর জানার পর অনেকেই শিশুটিকে দত্তক নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তবে মোস্তাফিজুর রহমান সবার আগ্রহকে সম্মান দেখিয়ে বলেন, ‘সবার দোয়ায় আমরা নিজেরাই তাকে বড় করতে চাই।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন