বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টা থেকে টঙ্গীর মিলগেট এলাকায় উভয়মুখী সড়কে স্থায়ী নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। সকাল-সন্ধ্যা চলবে এ নির্মাণকাজ। সুতরাং যাঁরা এ পথের যাত্রী, তাঁরা যেন হাতে সময় থাকলে কিছু বিকল্প সড়ক ব্যবহার করেন। এ সময় নির্বিঘ্ন চলাচলের জন্য কিছু বিকল্প সড়কের কথাও উল্লেখ করা হয়।

এরপরও কেউ ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কটি ব্যবহার করতে চাইলে হাতে বাড়তি সময় নিয়ে বের হওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

জিএমপির দেওয়া বিকল্প সড়কগুলো হলো—ঢাকাগামী সড়ক বনমালা রেলগেট-টঙ্গী পূর্ব থানা-স্টেশন রোড-ঢাকা, ধীরাশ্রম রেলগেট-হায়দারাবাদ চৌরাস্তা-নিমতলী ব্রিজ-স্টেশন রোড-ঢাকা, ময়মনসিংহগামী সড়ক ঢাকা-স্টেশন রোড-মিরের বাজার-ভোগড়া (ঢাকা বাইপাস রোড), কুড়িল বিশ্বরোড-৩০০ ফিট-উলুখোলা ব্রিজ-মিরের বাজার-ভোগড়া (ঢাকা বাইপাস রোড)। তবে এরপরও কেউ ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কটি ব্যবহার করতে চাইলে হাতে বাড়তি সময় নিয়ে বের হওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে গাজীপুর মহানগর পুলিশের উপকমিশনার মো. আলমগীর হোসেন এই সংবাদ বিজ্ঞপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রথম আলোকে বলেন, চাইলে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কটি ব্যবহার করা যায়। তবে যেহেতু সড়কের দুই পাশেই কাজ চলছে, তাই কিছুটা হলেও স্বাভাবিক যান চলাচল ব্যাহত হবে। তাই যাঁদের হাতে বেশি সময় আছে, তাঁরা যেন বিকল্প পথগুলো ব্যবহার করতে পারেন, সে জন্যই বিজ্ঞপ্তি দেওয়া। তিনি বলেন, মহাসড়কে কাজ চললেও যান চলাচল থেমে নেই। শুধু যাত্রীদের যাতায়াত সুবিধার জন্য তাঁরা বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন।