এই বিষয়ে নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভূঁইয়া বলেন, ১৫ নভেম্বর বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে অভিযানের সময় রিভলবার, ককটেল ও মশাল জব্দের ঘটনায় করা মামলায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আজ শুক্রবার তাদের নরসিংদীর আদালতে পাঠানো হবে।

উল্লেখ্য, ১৫ নভেম্বর জেলা বিএনপির কার্যালয়ে বৈঠক চলাকালে সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত শতাধিক পুলিশ সদস্য নিয়ে অভিযান চালায় নরসিংদী মডেল থানা–পুলিশ। তিন ঘণ্টা সময় ধরে চলা অভিযানে একটি রিভলবার, কিছু ককটেলসদৃশ বস্তু ও অর্ধশতাধিক মশাল জব্দের কথা জানায় পুলিশ। ওই সময় অন্তত ১০ জন নেতা-কর্মী আটক হন। পরদিন উপপরিদর্শক মো. মনির হোসেন বাদী হয়ে বিএনপির ২৬ জন নেতা-কর্মীর নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ৪০-৫০ জনকে আসামি করে বিস্ফোরক আইনে মামলা করেন। আটক ১০ জনের মধ্যে যাচাই-বাছাই শেষে ছয়জনকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

বিএনপির নেতা–কর্মীরা জানান, গতকাল বিকেল থেকে কার্যালয়ের ভেতরে বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়ন থেকে আসা দলীয় নেতা–কর্মীদের নিয়ে সভা করেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকন। আগামী ১০ ডিসেম্বরে ঢাকার মহাসমাবেশে দলীয় নেতা–কর্মীদের করণীয় নিয়ে সেখানে আলোচনা হয়। এ সময় বিভিন্ন উপজেলার বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের নেতাদের কাছে ওই মহাসমাবেশ–সংশ্লিষ্ট পোস্টার-ব্যানার বুঝিয়ে দেওয়া হয়। রাত ৮টার দিকে রায়পুরা থানা যুবদলের আহ্বায়ক নূর আহাম্মেদ চৌধুরী, সদস্যসচিব হুমায়ুন কবির ও রায়পুরা পৌর ছাত্রদলের সভাপতি পদপ্রত্যাশী সামসুজ্জামান হাতে পোস্টার-ব্যানার নিয়ে কার্যালয় থেকে বের হন। এ সময় কার্যালয়ের ফটকের সামনে থেকে থাকা পুলিশ সদস্যরা তাঁদের গ্রেপ্তার করেন।

তিনজনকে গ্রেপ্তারের খবর পেয়ে বাইরে বেরিয়ে আসেন খায়রুল কবির। এ সময় তিনি পুলিশ সদস্যদের কাছে অনুরোধ করেন তাদের ছেড়ে দিতে। পুলিশ সদস্যরা সাড়া না দিলে একপর্যায়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের এতটুকু রাজনীতি কি করতে দেবেন না?’ তার প্রশ্নে নিরুত্তর থাকেন উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির প্রথম আলোকে বলেন, পুলিশকে ব্যবহার করে ভোট ডাকাত আওয়ামী লীগ সরকার বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা–কর্মীদের ভয়ভীতি দেখাতে একের পর এক গায়েবি, মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা দিচ্ছে। এসব মামলায় উল্লেখযোগ্য নেতা–কর্মীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে, যাতে বিএনপি আগামী ১০ ডিসেম্বর মহাসমাবেশ সফল করতে না পারে। এরই ধারাবাহিকতায় কার্যালয় থেকে বের হওয়ার সময় রায়পুরার তিন নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।