আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান তাঁর দপ্তরে প্রথম আলোকে এ কথা নিশ্চিত করেছেন। জেলা প্রশাসক বলেন, আমির হোসেন মুন্সী কোথা থেকে ওই টাকা পেয়েছেন? এই টাকার উৎস কী? আমিরের কোনো ওয়ারিশ নেই, তিনি অবিবাহিত ছিলেন। থাকতেন একলা ঘরে। খেতেনও একলা। টাকাগুলো বান্ডিল করা আলমারিতে সাজানো ছিল। সাধারণত মাজার কিংবা খয়রাতের টাকা এলোমেলো থাকে। এসব বিষয় নিয়ে আগে তদন্ত হওয়া দরকার। তদন্ত করার জন্য ইউএনওকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ব্যাংকে রাখা টাকা উত্তোলন বন্ধ থাকবে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর করণীয় ঠিক করা হবে। দ্রুত প্রতিবেদন দেবেন ইউএনও।

উদ্ধারের পর ওই টাকা আমিরের ভাইদের ব্র্যাক ব্যাংকের স্থানীয় শাখার যৌথ হিসাবে রাখা হয়েছে।

৮ জুলাই আমির হোসেন মুন্সী মারা যান। গতকাল বুধবার দুপুরে গাজীপুরের মাজারবাড়ী এলাকায় আমিরের ঘরে থাকা আলমারি খুলে ২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা, ৩ লাখ টাকার বৈদেশিক মুদ্রা ও স্বর্ণালংকার উদ্ধার করে পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিরা। পরে ওই টাকা আমিরের ভাইদের ব্র্যাক ব্যাংকের স্থানীয় শাখার যৌথ হিসাবে রাখা হয়। এরপর এই নিয়ে পুরো জেলায় ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তোলপাড় শুরু হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন