মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সালথা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) পরিমল মালো বলেন, কাল মঙ্গলবার জেলগেটে ওদুদ মাতুব্বরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। জিজ্ঞাসাবাদে ওদুদ মাতুব্বরের ভূমিকা সম্পর্কে পরিচ্ছন্ন ধারণা না পাওয়া গেলে আবারও রিমান্ডের আবেদন করবে পুলিশ।

আদালতের আদেশ অনুযায়ী, আগামীকাল সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ফরিদপুর জেলা কারাগারের ফটকে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে পুলিশ। পাশাপাশি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের জামিন শুনানির জন্য ২০ জুলাই দিন ধার্য করেছেন আদালত।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী হাবিবুর রহমান বলেন, গ্রেপ্তার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ওদুদ মাতুব্বরের জামিনের আবেদন জানায় বাদীপক্ষ। আদালত আগামী বুধবার জামিন শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

৮ জুলাই সন্ধ্যায় উপজেলার গট্টি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু জাফর মোল্লার ওপর দুর্বৃত্তরা হামলা চালায়। তখন তিনি দৌড়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা এলেম শেখের বাড়িতে আশ্রয় নিলে হামলাকারীরা তাঁর বসতবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। এ ঘটনায় ওই মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী জয়গুন বেগম বাদী ৯ জুলাই দিবাগত রাতে ওদুদ মাতুব্বরকে প্রধান আসামি করে ৩৬ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় বর্তমানে কারাগারে আছেন ওদুদ মাতুব্বর।

এরপর গত শুক্রবার গট্টি ইউনিয়নের দিয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ইয়াদ আলী (৩৯) বাদী হয়ে হামলা, ভাঙচুর ও চাঁদাবাজির অভিযোগে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ মোট ৪০ জনের নামে একটি মামলা করেন। গত শনিবার একই ইউনিয়নের মীরের গট্টি গ্রামের বাসিন্দা শেখ মজিবর (৪৫) হামলা ও ভাঙচুরের আরেকটি মামলা করেন। মামলায় উপজেলা চেয়ারম্যানসহ মোট ১০ জনকে আসামি করা হয়। আদালতের নির্দেশে ওই দুই মামলায় ওদুদ মাতুব্বরকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীর দায়ের মামলায় গত বুধবার ফরিদপুরের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টের ৬ নম্বর আমলি আদালতে হাজির হয়ে ওদুদ মাতুব্বরসহ ৩৩ জন আসামি জামিনের আবেদন করেন। আদালত ২২ জনের জামিন মঞ্জুর করেন। তবে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১১ জনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এলাকায় আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ

এদিকে বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের মামলায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কারাগারে থাকায় সালথায় আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ করেছেন এলাকার বাসিন্দারা। গতকাল রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সদর বাজারের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মিষ্টি বিতরণের মধ্য দিয়ে সালথা চৌধুরী মোড়ে এসে মিছিলটি শেষ হয়। মিছিলে অংশগ্রহণকারীরা উপজেলা চেয়ারম্যান ওদুদ মাতুব্বরকে সালথা উপজেলার শীর্ষ সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ এবং সব অপকর্ম ও সহিংসতার মূল হোতা বলে আখ্যায়িত করে তাঁর সর্বোচ্চ বিচার দাবি জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন