default-image

বগুড়ায় পৌঁছার আগেই সকাল আটটার দিকে বগুড়া-নওগাঁ মহাসড়কের কাহালু উপজেলার দরগাহাটসংলগ্ন কালিয়ার পুকুর এলাকায় বিপরীতমুখী একটি বেপরোয়া ট্রাকের ধাক্কায় তাঁদের প্রাইভেট কারটি দুমড়েমুচড়ে যায়। কাহালু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমবার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, প্রাইভেট কারের চালক সুমন, যাত্রী তনছের আলী ও তাঁর ছেলে ফজলে রাব্বি ঘটনাস্থলেই নিহত হন। কারে থাকা আহত দুই যাত্রী আবদুর রহমান ও শাকিলকে উদ্ধার করে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক আবদুর রহমানকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত তনছের আলী ধামুইরহাট সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। অন্যদিকে তাঁর ছেলে ফজলে রাব্বি কৃষিকাজ করতেন। তাঁর বন্ধু একই উপজেলার চকযদু গ্রামের আবদুর রহমান বালুর ব্যবসা করতেন। প্রাইভেট কারের চালক সুমনের (৩০) বাড়ি নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার গুচ্ছগ্রামে।

default-image

দুর্ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা নিহত চারজনের লাশ উদ্ধার করে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের মর্গে নেন। লাশঘরের সামনে কথা হয় নিহত ব্যক্তিদের স্বজনদের সঙ্গে। বাবা তনছের আলী ও ছোট ভাই ফজলে রাব্বি নিহত হওয়ার খবর শোনার পর হাসপাতালের সামনে ছুটে এসেছেন জাহাঙ্গীর আলম। তিনি জয়পুরহাটের ভুটিয়ামারি উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ২১ দিনের মাথায় কেমোথেরাপি নিতে হতো বাবাকে। সেই হিসাবে ঈদের আগেই থেরাপি নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু শারীরিকভাবে তিনি বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েন। কিছুটা সুস্থ হলে আজ থেরাপি নিতে বাবাকে নিয়ে বগুড়ায় রওনা দেন ছোট ভাই ফজলে রাব্বি। পথে ট্রাক দুজনকেই কেড়ে নিল।

নিহত ফজলে রাব্বির স্ত্রী সোমা বেগম বলেন, ‘ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করেই আমার শ্বশুর ৯ মাস ধরে বেঁচে ছিলেন। কিন্তু দানব ট্রাকের কারণে বাঁচতে পারলেন না। আমি অল্প বয়সে স্বামীহারা হয়ে গেলাম। এখন দুই বছর বয়সী আমার অবুঝ মেয়েটা বাবা বাবা করে কাঁদছে। অবুঝ মেয়েটাকে কী বলে সান্ত্বনা দেব?’

আবদুর রহমান বালুর ব্যবসা করতেন। ভাড়া করা ট্রাকে বালু সরবরাহ করতে খরচ বেশি পড়ত। এ কারণে ট্রাক কেনার স্বপ্ন ছিল তাঁর বহুদিনের। তাঁর বাবা মফিজ উদ্দিন বলেন, ব্যবসার জন্য কিস্তিতে ট্রাক কেনার স্বপ্নপূরণ করতে ১৮ লাখ টাকা জোগাড় করেন আবদুর রহমান। আজ একটি প্রাইভেট কার ভাড়া করেন বগুড়া যাওয়ার জন্য। সঙ্গে নেন ১৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে এক বন্ধু ও তাঁর অসুস্থ বাবাকেও কারে তুলে নেন। তবে বগুড়ায় পৌঁছার আগেই সবাই নিহত হয়েছেন। আবদুর রহমানের সঙ্গে থাকা ১৮ লাখ টাকাভর্তি ব্যাগের হদিস মেলেনি এখনো। মফিজ উদ্দিন বলেন, ‘দুই বছর আগে রহমানকে বিয়ে দিয়েছি। এখনো সন্তান হয়নি। বাবা হয়ে ছেলের এই মর্মান্তিক মৃত্যুর শোক সইব কীভাবে?’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন