জিডিতে উল্লেখ করা হয়, এক সপ্তাহ আগে রাশিদুল মারা যান। স্বামীর মৃত্যুর বিচারে তাঁর স্ত্রী ইতি আক্তার নানাভাবে চেষ্টা করছেন। বিষয়টি জানতে পেরে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা তাঁদের অনুসারীদের দিয়ে নিহত রাশিদুলের পরিবারের সদস্যদের বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিচ্ছেন। এর মধ্যে গতকাল সকালে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা রাশিদুলের বাড়িতে এসে তাঁর স্ত্রীসহ স্বজনদের গালাগাল করেন। এ সময় তাঁরা রাশিদুলের মৃত্যুর ঘটনায় কোনো মামলা-মোকদ্দমা করলে স্বজনদের হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেন।

অভিযোগ অস্বীকার করে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা শফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা কোনো হুমকি দিইনি। আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।’

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ এফ এম সায়েদ বলেন, ‘একটি সাধারণ ডায়েরি নেওয়া হয়েছে। তাঁদের অভিযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত বৃহস্পতিবার চনপাড়া বস্তিতে র‍্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রাশিদুল নিহত হন। র‍্যাবের দাবি, বৃহস্পতিবার দুপুরে র‍্যাব-১-এর একটি দল অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার অভিযানে গেলে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত রাশিদুল এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তিনি চনপাড়ার ছয় নম্বর ওয়ার্ড এলাকার মৃত মজিবুর রহমানের ছেলে। তাঁর বিরুদ্ধে হত্যা ও হত্যার চেষ্টাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ২৩টি মামলা ছিল।