বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গোলাপগঞ্জের এদিকটায় অনুচ্চ টিলাগুলোর ওপর সুন্দর ছিমছাম বাড়ি। চারপাশ বুনো গাছগাছড়ায় ঠাসা। বসতিও খুব বেশি নেই। অভ্যাসবশত ঘুরে ঘুরে গাছগুলো দেখছি। হঠাৎ একটি লাল রঙের ফুলে চোখ আটকে গেল। এ তো পালাম ফুল! মনে পড়ল অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা ঢাকায় দুটো পালাম গাছ লাগিয়েছিলেন। যার একটি ঢাকায় রমনা পার্ক নার্সারি ও অন্যটি শিশু একাডেমির বাগানে দেখা যায়। পালামের পাশেই পাওয়া গেল ফলভর্তি লটকন (ভুবি) আর ডেফলগাছ।

পালাম ফুলের ছবি তুলে সরু পথ ধরে আরেকটি টিলা পাশ কাটাতেই চোখে পড়ল ব্যতিক্রমী একটি অচেনা ফুল। প্রথমে ভেবেছিলাম কোনো লতানো গাছের ফুল। ভালোভাবে খুঁটিয়ে দেখি এটি আসলে একটি বৃক্ষ। ডালপালার ভেতর ক্যামেরার লেন্স গলিয়ে কয়েকটি ছবি তুলে রাখলাম।

ঢাকায় ফিরে ফুলটির সঠিক পরিচয় জানতে বাংলাদেশ ন্যাশনাল হার্বেরিয়ামের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা সরদার নাসির উদ্দিনের শরণাপন্ন হলাম। তিনি জানালেন, এটি সুতাগোলা বা লেকুয়া গর্জন। স্থানীয়ভাবে লাইসা গর্জন নামেও পরিচিত। তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেল, গাছটি মহাবিপন্ন! হাতে গোনা যায়Ñএমন কটি গাছই কেবল আছে আমাদের বনে। আশ্চর্য হই, লোকালয়ের এই অগভীর বনে এমন একটি মহাবিপন্ন বৃক্ষ বেঁচে আছে? জানি না, গাছটি আর কত দিন সেখানে সুরক্ষিত থাকবে!

চিরসবুজ লেকুয়া গর্জন সাধারণত ১২ মিটার পর্যন্ত উঁচু হতে পারে। বাকল ফ্যাকাশে ধূসর ও মসৃণ। ডাল হালকা গড়নের, পাতার ডাঁটা প্রায় ২ সেন্টিমিটার লম্বা। পাতা উপবৃত্তাকার থেকে লেন্স আকৃতির, সাধারণত ১০ থেকে ২৩ সেন্টিমিটার লম্বা। সুগন্ধি ফুলগুলো ১২ সেন্টিমিটার দীর্ঘ, পাপড়ি দেখতে চাবুকের মতো, দেড় থেকে ২ সেন্টিমিটার দীর্ঘ এবং ২ মিলিমিটার দীর্ঘ কুঁড়িতে উন্মুক্ত অংশগুলো মখমল-রোমশ। পুংকেশরের সংখ্যা ১৫, আয়তাকার। ফল গোলাকার, নাট-আকৃতির, দেড় থেকে আড়াই সেন্টিমিটার চওড়া, শীর্ষ দীর্ঘাগ্র ও মখমলসদৃশ।

এ গাছের কাঠ প্রধানত নির্মাণকাজ, তক্তা ও ঘরের খুঁটি তৈরিতে ব্যবহার্য। কাঠে সূক্ষ্ম বুনন থাকায় কাপড় বোনার মাকু, সুতা রাখার ববিন এবং গণিত শাস্ত্রের যন্ত্রাদি তৈরিতে বহুল ব্যবহৃত। রেলপথের স্লিপার হিসেবেও এই কাঠ বেশি ব্যবহার করা হতো। তা ছাড়া এ গাছের বাকল ও কাঠ থেকে প্রাপ্ত রেজিন ধূপ হিসেবে ব্যবহার করে তামাকপাতার সুগন্ধি করা হয়। এই তামাকপাতা পানের সঙ্গে চিবানো হয়। ফুল ও ফলের মৌসুম মে থেকে আগস্ট। লেকুয়া গর্জনের (Vatica lanceaefolia) সারকাঠ হলুদাভ বাদামি রঙের ও বিশেষ ধরনের গন্ধযুক্ত। বীজের সাহায্যে বংশ বিস্তার হয়। রেকর্ড অনুযায়ী এই গাছ বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামের চিরহরিৎ অরণ্যে জন্মে। কিন্তু ওই গাছ সিলেটেই প্রাকৃতিক আবাসে পাওয়া গেল।

পরিবেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন