বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কয়েক দিন পর দেখলাম স্ত্রী দোয়েলটি খড়কুটো সংগ্রহ করছে এবং ফোকরে নিয়ে যাচ্ছে। প্রথম দিকে বড় ধরনের খড়কুটো, তারপর মাঝারি এবং শেষে মসৃণ ও নারিকেলের খোলের নরম আঁশ ও ঘাস—এই হলো তাদের বাসা বানানোর উপাদান। এক সপ্তাহ লাগল বাসা বানাতে। স্ত্রী পাখিটিই কেবল খড়কুটো সংগ্রহ করে বাসাটি তৈরি করেছে। পুরুষটি তাকে সঙ্গ দিয়েছিল যাওয়া-আসার পথে। এরপর কয়েক দিন তাদের বাসায় আসা-যাওয়া দেখিনি। কিছুদিন পর স্ত্রী দোয়েলটি বাসায় ফিরল এবং দেখলাম ডিম দিয়েছে। প্রথম ডিম পাড়ার দুই দিন পর দ্বিতীয় ডিম। একে একে চারটি ডিম দিয়েছিল সেবার। ডিম ফ্যাকাশে নীল, তাতে সবুজ ও বাদামি দাগযুক্ত। স্ত্রী দোয়েলটি এককভাবে প্রায় দুই সপ্তাহ ডিমে তা দেওয়ার পর ডিম ফোটে। ছানাগুলোকে খাওয়ানোর দায়িত্বটাও বেশি পালন করে স্ত্রী দোয়েলটি। ছেলেটি কদাচিৎ। পুরুষ দোয়েল কেবল বাসার আশপাশে বসে পাহারা দেয় এবং ‘এলাকা’ নিয়ন্ত্রণ করে। অন্য প্রজাতির শালিক কিংবা অন্য কোনো দোয়েল যুগল যেন বাসা না দখল করতে পারে, সে জন্য তার সতর্ক পাহারা থাকে।

প্রধানত মার্চ থেকে জুলাই মাসে দোয়েল বংশবৃদ্ধি করে। তখনই মূলত পুরুষ দোয়েল দরদ দিয়ে গান গায়। স্ত্রী দোয়েল পুরুষের উপস্থিতিতে অল্প করে গান গাইতে পারে। খাবারের তালিকায় আছে পোকামাকড়, ফুলের মধু, ছোট মাছ ও ছোট চিংড়ি। সিঙ্গাপুরসহ এশিয়ার কয়েকটি দেশে দোয়েলের সংখ্যা কমে যাচ্ছে, ভাতশালিকের সঙ্গে প্রতিযোগিতার কারণে। কারণ, বাসা বানানোর জন্য দুটি প্রজাতিই প্রধানত ফোকরনির্ভর।

দোয়েল আমাদের জাতীয় পাখি। কবিতা, গানে ও মানুষের মনে দোয়েলের গান প্রভাব বিস্তার করে। তা ছাড়া দোয়েলের চোখ বড়ই মায়াবী। দোয়েলের মায়াভরা চোখ এবং আকুল করা গান আমাদের ইঙ্গিত দেয় জীবন দোয়েলের মতোই।

পরিবেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন