রাজধানীতে স্বস্তির বৃষ্টির সঙ্গে তীব্র কালবৈশাখী

ফাইল ছবি

প্রচণ্ড গরমে ক্লান্ত নগরবাসী আজ বুধবার সকালেই পেল কাঙ্ক্ষিত বৃষ্টি। সকাল পৌনে সাতটা থেকে আটটা পর্যন্ত রাজধানীতে ৪৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। মৌসুমের তীব্র কালবৈশাখী ঝড় হলো আজ ঢাকায়।

ঝড়ে সড়ক বিভাজকের গাছে ভেঙে পড়ে গেছে। তা সরিয়ে রেখেছেন সিটি করপোরেশনের কর্মীরা। সাত মসজিদ রোড, ঢাকা, ২০ এপ্রিল
ছবি: জাহিদুল করিম

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, ঝড়ের সময় নগরীর বিমানবন্দর এলাকায় বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৭০ কিলোমিটার। শুধু রাজধানী ঢাকায় নয়, ঝড় হয়েছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। সকাল পৌনে ১০টায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় কুমিল্লা, নোয়াখালী, রাঙামাটি ও টাঙ্গাইল জেলার বিভিন্ন এলাকায় কালবৈশাখী বয়ে যাচ্ছিল।

আজ ভোর থেকেই রাজধানী ঢাকার আকাশ ছিল মেঘাচ্ছন্ন। আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মোহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক প্রথম আলোকে বলেন, আজ সকাল ছয়টার পর থেকেই রাজধানীতে ঝিরঝির করে বৃষ্টি শুরু হয়। সকাল সাতটার কিছু আগে থেকেই শুরু হয় তুমুল বৃষ্টি। সেই সঙ্গে ছিল বজ্রপাত। সকাল পৌনে সাতটা থেকে আটটা পর্যন্ত রাজধানীতে ৪৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এ সময় আগারগাঁও এলাকায় প্রতি ঘণ্টায় বাতাসের গতিবেগ ছিল ৫৫ কিলোমিটার। আর বিমানবন্দর এলাকায় গতিবেগ ছিল ৭০ কিলোমিটার।

আবুল কালাম মল্লিক বলেন, রাজধানীতে তীব্র কালবৈশাখী হয়েছে বলা যায়। মৌসুমে এর আগেও কালবৈশাখী হয়েছে। তবে আজকেরটা আগের চেয়ে তীব্র।

রংপুরে বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৭৮ কিলোমিটার। গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত তিনটার পরে কালবৈশাখী আঘাত হানে রংপুর, কুড়িগ্রাম, বগুড়া, নওগাঁসহ রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের বিভিন্ন স্থানে। আজ বৃষ্টি হয়েছে সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জায়গায়। সিলেট বৃষ্টি হয়েছে ২৭ মিলিমিটার।