আগে হাসপাতালটিতে মাত্র ৪টি মেশিনে নিয়মিত ডায়ালাইসিস করা হতো। সম্প্রতি বেসরকারি ডায়ালাইসিস প্রতিষ্ঠান স্যানডরের ভর্তুকি কমিয়ে দেওয়া নিয়ে আন্দোলন শুরু হয়। এরপর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জরুরি ভিত্তিতে চমেক হাসপাতালে ১০টি ডায়ালাইসিস মেশিন দেয়। এর মধ্যে ৯টি বসানো হয় কিডনি ওয়ার্ডে। বাকি একটি কোভিড ওয়ার্ডে বসানো হয়। কোভিড ওয়ার্ডে আগে থেকে তিনটি ডায়ালাইসিস মেশিন ছিল।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, একসঙ্গে চালু হওয়া ১৭টি মেশিনের সাহায্যে প্রতিদিন তিন সেশনে ৫১ জনকে ডায়ালাইসিস সেবা প্রদান করা সম্ভব হবে। এ ছাড়া অতি জরুরি রোগীদের সেবা দেওয়াসহ সর্বমোট গড়ে ৬০ জনকে সেবা প্রদান করা যাবে।

চমেক হাসপাতালের উপপরিচালক অং সুই প্রু মারমা বলেন, কিডনি রোগীদের ডায়ালাইসিস সেবায় নতুন মেশিন চালু হওয়ায় কিডনি রোগীদের সেবা পরিধি বাড়ল। এখানে ৪১৭ টাকায় প্রতি সেশন ডায়ালাইসিস করা যাবে।