গত শনিবার বিকেলে বুড়িগঙ্গা নদীর ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকা থেকে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। সেদিন রাত ১২টার দিকে লাশটি দুরন্ত বিপ্লবের বলে শনাক্ত করেন স্বজনেরা। ৭ নভেম্বর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন।

নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় দুরন্তের বোন শাশ্বতী বিপ্লব গত শুক্রবার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। এতে তিনি উল্লেখ করেন, ৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় কেরানীগঞ্জের খামার থেকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জাপান গার্ডেন সিটিতে মায়ের বাসায় যাওয়ার উদ্দেশে বের হন তাঁর ভাই। এর পর থেকে তিনি নিখোঁজ।

আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায়বিষয়ক উপকমিটির সদস্য দুরন্ত বিল্পব জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ১৯৯৪ সালের কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পারিবারিক সূত্র জানায়, বেশ কিছুদিন ধরে তিনি রাজনৈতিকভাবে খুব বেশি সক্রিয় ছিলেন না। তিনি কেরানীগঞ্জে কৃষিখামার চালাতেন। থাকতেন খামার এলাকার একটি ভাড়া বাসায়।

রোববার নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে দুরন্ত বিপ্লবের লাশের ময়নাতদন্ত হয়েছে। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা মফিজুল উদ্দিন প্রধান সাংবাদিকদের বলেন, দুরন্তের মাথার পেছনে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, তাঁকে হত্যা করা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, দুরন্তের ব্যবহৃত মুঠোফোনের সর্বশেষ অবস্থান যেখানে ছিল, সেখানে একটি নৌকাডুবির কথা শোনা যাচ্ছে। তবে সেখানে দুরন্ত ছিলেন কি না, সেটা যাচাই করে দেখা হচ্ছে। তবে সোমবার পর্যন্ত নৌকাডুবির বিষয়টি নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।