এ ছাড়া তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের বিষয়ে হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে আদালতে হলফনামাও দিতে বলা হয়েছে। রাষ্ট্রমালিকানাধীন বেসিক ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে করা পৃথক মামলায় নিম্ন আদালতে বিফল হয়ে হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আবেদন করেন শান্তিনগর শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আলী। এর প্রাথমিক শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট জামিন প্রশ্নে রুল দেন। কেন মোহাম্মদ আলীকে জামিন দেওয়া হবে না, রুলে তা জানতে চাওয়া হয়।

পৃথক রুলের ওপর একসঙ্গে শুনানি শেষে আজ রায় দেওয়া হয়। আদালতে মোহাম্মদ আলীর পক্ষে আইনজীবী এস এম আবুল হোসেন ও দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন, সঙ্গে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম।

হাইকোর্ট তিন মামলায় মোহাম্মদ আলীকে জামিন দেননি। তিন মামলায় তাঁর জামিন প্রশ্নে রুল খারিজ (ডিসচার্জ) করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

উল্লেখ্য, বেসিক ব্যাংকে ঋণ জালিয়াতির ঘটনায় ২০১৫ সালের ২১, ২২ ও ২৩ সেপ্টেম্বর ৫৬টি মামলা করে দুদক, যেখানে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকার আর্থিক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে ১২টি মামলা রয়েছে, যার বিপরীতে ৪২৪ কোটি ৭০ লাখ টাকা তছরুপের অভিযোগ।