স্থায়ীভাবে আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী কেন্দ্র করার জন্য ২০০৯ সালে প্রাথমিকভাবে তেজগাঁও পুরোনো বিমানবন্দরের ৩৯ একর খালি জায়গা নির্ধারণ করা হয়। পরে সেখানে জায়গা না পাওয়ায় প্রকল্পটি পূর্বাচল উপশহরে সরিয়ে নেওয়া হয়। ২০১৭ সালের অক্টোবরে প্রদর্শনী কেন্দ্রের নির্মাণকাজ শুরু হয়। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ৬২৫ কোটি ৭০ লাখ টাকা অনুদান দেয় চীন সরকার। জমি বাবদ সরকার দিয়েছে ১৭০ কোটি টাকা।

রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড থেকে পূর্বাচলের এ প্রদর্শনী কেন্দ্রটির দূরত্ব প্রায় ১৫ কিলোমিটার। প্রদর্শনী কেন্দ্রে দৃষ্টিনন্দন ঢেউখেলানো ছাদের নিচে ২ লাখ ৬৯ হাজার বর্গফুটের দুটি পৃথক প্রদর্শনী হলে আছে ৮০০টি স্টলের ব্যবস্থা। সম্পূর্ণ শীতাতপনিয়ন্ত্রিত প্রদর্শনীস্থলে সম্মেলনকক্ষ, খাবারের জন্য বিশাল কক্ষ ও বাচ্চাদের খেলার জায়গা রয়েছে।

ইপিবির কর্মকর্তারা জানান, আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী কেন্দ্রে সারা বছর সোর্সিং ও পণ্য প্রদর্শনী হবে। সে জন্য পাঁচ তারকা হোটেল, নতুন প্রদর্শনী কেন্দ্র, ভূগর্ভস্থ পার্কিং ইত্যাদি করা হবে। এসব স্থাপনার জন্য ইতিমধ্যে বাড়তি জমি পাওয়া গেছে।